তৃণমূল ছেড়ে কংগ্রেসে আসুন, কটাক্ষ অভিষেককে

ফাইল ছবি। গুগল থেকে প্রাপ্ত।

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: প্রকৃত কংগ্রেসিদের তৃণমূলে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃ্ত্বের কড়া সমালোচনার মুখে পড়লেন তৃণমূল সাংসদ তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাঁর বিরুদ্ধে জোর করে কংগ্রেস ভাঙানোর অভিযোগ উঠল৷ কংগ্রেস সূত্রের খবর, বিষয়টি নিয়ে বিধানসভায় সরব হতে পারেন কংগ্রেস বিধায়করা৷

প্রধান প্রতিপক্ষ সিপিএমকে হটাতে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একসময় প্রকৃত কংগ্রেসিদের নিজের নতুল দলে আহ্বান জানিয়েছিলেন৷ সোমবার পিসির পথ অনুসরণ করেছেন ভাইপো৷ বর্তামানে তাঁদের প্রধান প্রতিপক্ষ বিজেপিকে হারাতে তিনিও প্রকৃত কংগ্রেসিদের তৃণমূলে আহ্বান জানিয়েছেন৷ বাঁকুড়ায় অভিষেক বলেন, “কংগ্রেসকে বলব, দয়া করে সময় নষ্ট করবেন না। প্রকৃত কংগ্রেসকে যাঁরা ভালবাসেন, তাঁরা আমাদের দলে আসুন।”

রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই কংগ্রেস ভাঙানোর অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। একের পর এক বিধায়ক তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন৷ কংগ্রেস পরিচালিত পুরসভা, জেলা পরিষদ চলে গিয়েছে তৃণমূলের দখলে৷ সদ্য ২১ জুলাইয়ের মঞ্চে তৃণমূলের যোগ দিয়েছেন কংগ্রেসের চার বিধায়ক৷ আরও অনেকেই ঘাসফুলে যাওয়ার রাস্তায় পা বাড়িয়ে রয়েছেন৷

- Advertisement -

কংগ্রেসের পরিষদীয় দলনেতা আব্দুল মান্নান নিজে তৃণমূল নেত্রীর কাছে কংগ্রেস না ভাঙানোর আবেদন জানিয়েছেন৷ মমতাও তাঁকে মৌখিক আশ্বাসও দিয়েছেন। কিন্তু সেটা কথার কথা বলেই মনে করছে প্রদেশ কংগ্রেস৷ একই সঙ্গে প্রদেশ কংগ্রেসের শীর্ষ নেতারা অভিষেকের মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছেন৷ এবিষয়ে একটি বাংলা সংবাদমাধ্যমকে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী বলেন, “নিজেদের শক্তিতে তৃণমূলের ভরসা নেই। তাই বলেই কংগ্রেস ভাঙানোর ডাক দেওয়া হয়েছে৷ কেউ যদি ক্রীতদাস হতে ওই দলে যেতে চান, কী করব!”

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই মন্তব্যের কোনও প্রতিক্রিয়া দিতে চাননি প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ তথা কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা সোমেন মিত্র৷ তিনি বলেন, ” কে কী বলল তার প্রতিক্রিয়া আমি দেব না৷”

তৃণমূলে যোগদান ঘিরে জল্পনার মধ্যে থাকা মালদহের সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরীর বক্তব্য, “দিল্লিতে সোনিয়া গান্ধী- রাহুল গান্ধীর কাছে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন তাঁরা কংগ্রেসকে ভাঙাচ্ছেন না৷ এদিকে তাঁর ভাইপো কংগ্রেস ভাঙাতে চাইছেন৷ তবে পুরোনো কংগ্রেসি হয়ে আমি একটাই কথা বলতে পারি, আমি কংগ্রসে আছি, কংগ্রেসেই থাকব৷”

তবে একধাপ এগিয়ে তৃণমূলীদেরই কংগ্রেসে যোগদানের আহ্বান জানিয়েছেন এআইসিসি-র নেতা শুভঙ্কর সরকার৷ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “দেশে জাতপাতের উর্দ্ধে উঠে সমস্ত অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করতে গেলে একমাত্র জাতীয় কংগ্রেসই ভরসা৷ আমি আপনাদের বলব আপনারা সবাই কংগ্রেসে চলে আসুন৷”

ইতিমধ্যে আগামী লোকসভা ভোটের আগে বিজেপির মোকাবিলায় বিরোধী ঐক্য গড়তে সচেষ্ট হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ওই বিরোধী শিবিরে জাতীয় কংগ্রেসকেও পাশে পেতে চান তিনি৷ তার জন্য একাধিকবার দিল্লিতে গিয়ে গান্ধী পরিবারের সঙ্গে দেখা করেছেন তিনি৷ এমনকি ১৯ জানুয়ারি ব্রিগেডেও সোনিয়া-রাহুলকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন তিনি। তবে প্রদেশ কংগ্রেসের সঙ্গে যে তিনি কোনও সমঝোতা চান না তা রাজ্যে ‘একলা চলার’ বার্তা দিয়েই বুঝিয়ে দিয়েছেন৷ দলের সেকেন্ড-ইন কম্যান্ড অভিষেকের মন্তব্যেও সেই ইঙ্গিত দিয়েছে৷ তবে বাংলার কংগ্রেস নেতাদের একাংশের দাবি, তাঁদের ছাড়া জাতীয় রাজনীতিতে মমতার কিচ্ছু করার নেই৷ কংগ্রেসের শরণাপন্ন তাঁকে হতেই হবে৷ এক প্রদেশ কংগ্রেস নেতার বক্তব্য, “আসলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চাইছেন বাংলা থেকে কংগ্রেসকে পুরোপুরি মুছে ফেলতে৷ তাহলে লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের সঙ্গে আসন নিয়ে দরাদরি করতে তাঁর সুবিধা হবে৷”

Advertisement ---
---
-----