শত্রুতার সমীকরণে মিলে যাচ্ছে বাম আর দক্ষিণপন্থা

প্রতীকী

পার্থসারথি গুহ:  রাজনীতিতে তারা পুরো বিপরীত মেরুর বাসিন্দা। আদর্শ থেকে কর্মসূচি সবেতেই উলট পুরাণের গল্প। এহেন বামপন্থী ও দক্ষিণপন্থীদের মধ্যে একটা ব্যাপারে কিন্তু বেজায় মিল। সেটা হল বামেদের প্রধান শত্রু কিন্তু কোনও দক্ষিণপন্থী শক্তি নয়। বরাবর তাদের পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে কোনও বাম শক্তিই। বলাবাহুল্য, বামেদের ওপর আঘাত হেনেছে অতি বামেরাই। আবার দক্ষিণপন্থী শক্তিকে ল্যাং মেরেছে চরম দক্ষিণপন্থী কোনও শক্তি। হিটলার-মুসোলিনিদের সঙ্গে তথাকথিত দক্ষিণপন্থীদের লড়াই তো এরই উদাহরণ।

অন্যদিকে রাশিয়া থেকে পূর্ব ইউরোপ কিংবা লাতিন আমেরিকাভুক্ত দেশ যেখানেই কমিউনিস্টরা মাথাচাড়া দিয়েছে তাদের কাউন্টার করতে এগিয়ে এসেছে কোনও অতি বাম সংগঠন বা গোষ্ঠী। ভারতেও এই ঘটনা বারংবার ঘটেছে। ৭০ এর দশকে নকশাল আন্দোলন চলার সময় এই অতিবাম শক্তির সঙ্গে বারবার সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েছে সিপিএম, সিপিআই সহ অন্য বাম দলগুলি। কখনও শত্রুর শত্রু বন্ধু এই ফর্মুলা মেনে চরম প্রতিপক্ষ কংগ্রেসের সঙ্গেও হাত মেলাতে দেখা গিয়েছে নকশালপন্থীদের।

মিশন একটাই বাম নিকেষ করা। এভাবে ৭০ এর দশকে আত্মঘাতী হয়ে উঠেছে বাম ও অতি বামেরা। রাজনীতির দুনিয়ার বহু প্রাজ্ঞ ব্যাক্তি বলে থাকেন নকশাল আন্দোলনের পরিপূর্ণ ফায়দা তুলেছে সিপিএম ও অন্যান্য বাম দলগুলি। যার ফলস্বরূপ পরবর্তীতে দীর্ঘদিনের মৌরসিপাট্টা চালিয়ে গিয়েছে বামফ্রন্ট সরকার। যদিও এর বিরুদ্ধে অনেক পালটা মতামতও পাওয়া যায়। আজ আর সেই প্রসঙ্গে যাওয়ার অবকাশ নেই।

- Advertisement -

বরং বাম বনাম অতি বামের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পার্ট ২ এ ফিরে যাওয়া যাক। রাজ্যে বাম জমানার শেষ পর্যায়ে মাওবাদী বনাম সিপিএম রক্তারক্তি অধ্যায় মনে করিয়ে দিয়েছে নকশাল-সিপিএম সংঘর্ষের স্মৃতি। আর কি আশ্চর্য কংশাল এর মতো এই পর্যায়েও মাওবাদীদের সঙ্গে তৃণমূলের আঁতাতের বিষয়টি অনেক সময় স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। এমনকি ততকালীন মাও নেতা পর্যন্ত আজকের রাজ্য প্রধানকে মুখ্যমন্ত্রী দেখতে চেয়ে বিবৃতি দিয়েছেন। কাঁটা দিয়ে কাঁটা তোলার মতো তখন অতি বাম শক্তি এভাবেই দক্ষিণপন্থী শক্তিকে সমর্থন জুগিয়েছে।

এখন এ রাজ্যে যে তৃণমূল বনাম বিজেপি লড়াই চলছে তা যেন দক্ষিণপন্থা বনাম অতি দক্ষিণপন্থার লড়াই। যা মনে করাচ্ছে বাম-অতি বাম লড়াইয়ের ক্লাইম্যাক্সকেই। শত্রুতার এই সমাপতনে কোথায় যেন বাম আর দক্ষিণপন্থা মিলেমিশে একাকার হয়ে যাচ্ছে।

Advertisement ---
-----