লাল গোলাপে আন্দোলনের দিশা পেল বাম

ছবি: মিতুল দাস৷

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: লাল চোখের বদলে লাল গোলাপ৷লাঠির বদলে ফুল৷আর, আঘাতের বদলে ভালোবাসা৷

পুলিশের বেধড়ক লাঠিচার্জের জবাব এল এ ভাবেই৷ অথচ, তার পরেও ফের এল লাঠির আঘাত৷আর, এ ভাবেও আন্দোলনে দিশা পেল বাম৷আন্দোলন, রাজ্যজুড়ে৷আর, এ রাজ্যে বামেদের ওই দিশা মিলল, তাদেরই ছাত্র সংগঠনগুলির আন্দোলনের সৌজন্যে৷

পশ্চিমবঙ্গে বামেদের আন্দোলন প্রসঙ্গে এমনটাই এখন মনে করছে রাজনৈতিক মহলের বিভিন্ন অংশ৷ বৃহস্পতিবার কলকাতায় বাম ছাত্র সংগঠনগুলির আইন অমান্য আন্দোলনে যেভাবে বেধড়ক লাঠিচার্জ করেছে বিশাল পুলিশ বাহিনী, তারই প্রতিবাদে শুক্রবার রাজ্যজুড়ে আন্দোলনে শামিল হয়েছে বামেরা৷ শুধুমাত্র শুক্রবারই নয়৷ জানানো হয়েছে, শনিবারও চলবে এই আন্দোলন৷ এবং, আন্দোলন জারি থাকবে তার পরেও৷

- Advertisement -

বাম ছাত্র সংগঠনগুলির ওই আইন অমান্য আন্দোলনের উপর পুলিশের বেধড়ক লাঠিচার্জের ঘটনাকে বর্বরোচিত ও অমানবিক আখ্যা দিয়ে, সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক তথা রাজ্যের বিরোধী দলনেতা সূর্যকান্ত মিশ্র বলেছেন, রাজ্যজুড়ে এই ঘটনার প্রতিবাদে আন্দোলন শুরু হয়েছে৷শুক্রবার প্রতিবাদ দিবস পালন হচ্ছে৷ শনিবারও চলবে এই আন্দোলন৷ এই আন্দোলন জারি থাকবে৷

আন্দোলনে যে ফিরে আসা চাই, সেই বোধোদয়ের প্রকাশ ঢের আগেই দেখা গিয়েছে বাম-নেতাদের কথায়৷আর, এ বার বাম ছাত্র সংগঠনগুলির কর্মসূচিকে সঙ্গী করেই, রাজ্যজুড়ে জোরদার আন্দোলনে নেমে পড়তে চাইছেন বাম-নেতারা৷ শুক্রবার প্রতিবাদের অঙ্গ হিসেবে রাজ্যের বিভিন্ন রাস্তায় অবরোধের কর্মসূচি নিয়েছিল বাম ছাত্র সংগঠনগুলি৷

ওই আন্দোলনে শামিল হয়েছিল এআইডিএসও-ও৷ ওই ছাত্র সংগঠনের তরফে জানানো হয়েছে, এসএফআই কর্মী সুদীপ্ত গুপ্তর মৃত্যুর তদন্তের দাবিতে ধর্মতলায় ওই দলের মিছিলের উপর যেভাবে পুলিশের লাঠিচার্জ হয়েছে, তা নিন্দনীয়৷ বর্তমান রাজ্য সরকারের আমলে পুলিশ যেভাবে গণআন্দোলনের উপর আক্রমণ নামিয়ে আনছে, তা অগণতান্ত্রিক৷দোষী পুলিশ আধিকারিকদের শাস্তিরও দাবি করেছে এআইডিএসও৷ শুধু তাই নয়৷ শুক্রবার বাম ছাত্র সংগঠনগুলির ওই কর্মসূচিতে শামিল থাকার জন্য, প্রতিটি বামপন্থী  সংগঠনকেও আহ্বান জানিয়েছিল এআইডিএসও৷

২০১৩-র ২ এপ্রিল পুলিশের হেফাজতে ছাত্রনেতা সুদীপ্ত গুপ্তর মৃত্যু হয়েছিল বলে অভিযোগ বামেদের৷ রাজ্যের বিভিন্ন শিক্ষাঙ্গনে শাসকদলের বিরুদ্ধে নৈরাজ্য সৃষ্টির অভিযোগে আন্দোলনে অংশ নিয়ে, মৃত্যু হয়েছিল ওই ছাত্রনেতার৷ তাঁর স্মরণেই বৃহস্পতিবার আইন অমান্যের ডাক দিয়েছিল বামেরা৷ওই ছাত্রনেতার অপমৃত্যুর বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবির পাশাপাশি রাজ্যে শিক্ষা সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে শাসকদলের নানা কার্যকলাপের প্রতিবাদে, বৃহস্পতিবার এসএফআই-এর সঙ্গে যৌথভাবে ওই আইন অমান্যের ডাক দিয়েছিল অন্যান্য বাম ছাত্র সংগঠন৷

তবে, অশান্ত হয়ে ওঠে বৃহস্পতিবারের ওই কর্মসূচি৷ আইন অমান্যকারীদের উপর একসময় বেধড়ক লাঠিচার্জ শুরু করে পুলিশের বিশাল বাহিনী৷ পুলিশের লাঠির আঘাতে জখম হন বহু ছাত্র-ছাত্রী৷ওই ঘটনার ভিডিও ফুটেজ দেখিয়ে কলকাতার পুলিশ কমিশনার সুরজিৎ করপুরকায়স্থ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দাবি করেছেন, শান্তিপূর্ণ প্রতীকী আন্দোলনের কর্মসূচির কথা দিয়েছিল বাম ছাত্র সংগঠনগুলি৷ কিন্তু, আন্দোলনকারীরা পুলিশকে আক্রমণ করেন৷ আন্দোলনকারীদের ছোঁড়া ঢিলে জখম হয়েছেন ন’জন পুলিশকর্মী৷

যদিও, ওই ভিডিও ফুটেজটি অসম্পাদিত বলে দাবি করেছেন পুলিশ কমিশনার৷ তবে, ওই ভিডিও ফুটেজে ছিল না পুলিশের বেধড়ক লাঠিচার্জের দৃশ্য৷ অথচ, প্রত্যক্ষদর্শীরা জানেন, আইন অমান্যের সময় কীভাবে বেধড়ক লাঠিচার্জ করেছে বিশাল পুলিশ বাহিনী৷আর, এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই, এ বার আন্দোলনে দিশা পেলেন বামেরা৷

======================================

Advertisement ---
-----