১৯৪৭ সালের ১৫ অগস্ট দেশভাগের মধ্য দিয়ে যখন স্বাধীন ভারতবর্ষের জন্ম হয় তখন দেশে চলছিল ১৯৪৬ সালের নির্বাচনে গড়া গণ পরিষদ এবং রাজ্যে রাজ্যে আইনসভা ৷ ধীরে ধীরে স্বাধীনদেশে নির্বাচন করার ব্যাপারে ভাবনা চিন্তা শুরু হল৷ ১৯৫০ সালে দেশের সংবিধান প্রবর্তনের পর ১৯৫১ সালে জন প্রতিনিধিত্ব আইন সেই কাজে সাহস যোগাল৷ এই জন প্রতিনিধিত্ব আইনের খসড়া করেছিলেন এক বঙ্গসন্তান – তিনি হলেন আইসিএস মৃগাঙ্গমৌলি বসু ৷ ওই সময় প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বিধান রায়ের পরামর্শে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব সুকুমার সেনকে প্রথম নির্বাচন কমিশনার করা হয় ৷ ভারতের নির্বাচন কমিশন গঠিত হল একটি স্বশাসিত সংস্থা যেটি দেশটির সকল নির্বাচন পরিচালনা করে থাকে।

আগে যেখানে রাজা জমিদার বড় বড় শিল্পপতি , ব্যারিষ্টার, রায় বাহদুর, খান বাহাদুরদের মতো কেউ কেটারা ভোটে দাঁড়াতেন৷ জনপ্রতিনিধিত্ব আইনের জেরে নির্বাচন প্রক্রিয়ায় বিপ্লব হয়ে যায় ৷ ব্যালটের মাধ্যমে ২১ বছর হলেই ভোটাধিকার প্রয়োগ করে কেন্দ্রে ও রাজ্যে জন প্রতিনিধি নির্বাচন করার সুযোগ এল আমজনতার হাতে৷ ১৯৫১ সালের ২৫ অক্টোবর শুরু হয়ে পরের বছরের ২১ফেব্রুয়ারি ভারতের প্রথম লোকসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

সদ্য স্বাধীন হওয়া দেশটিতে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা তখন রীতিমতো কঠিন কাজ কারণ তখন ১৭.৬ কোটি ভোটারের ৮৫ শতাংশ ছিলেন নিরক্ষর ৷ তাঁদের কথা ভেবে প্রার্থীর নামের সঙ্গে প্রতীকের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। তাছাড়া ওই সময় অনেক মহিলারই নিজস্ব নাম ব্যবহার হত না, তাঁরা পরিচিতি ছিলেন- অমুকের মা বা তমুকের পত্নী হিসেবে। ফলে তাঁদের নাম খুঁজে ভোটার তালিকায় তোলার কাজটা কতটা শক্ত ছিল তা অনুমেয়। পরিকাঠামো গত সমস্যা এড়াতে অজস্র সেতু নির্মাণ করতে হয়েছিল প্রত্যন্ত এলাকাতে ভোট পরিচালনার জন্য।

সেই পরিকাঠামোয় প্রথম নির্বাচন হওয়ায় বেশ কিছু ত্রুটি বিচ্যুতি ধরা পড়েছিল ঠিকই ৷ কিন্তু কোনও দল বা নেতা সুকুমার সেনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের কিংবা অভিযোগ পেলেও প্রতিকারের ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে কেউ অভিযোগ তেলেননি৷ এমনকি ওই সময় যারা ব্যালটের মাধ্যমে ভোট করার কথা শুনে নিয়ে অবাস্তব পরিকল্পনা বলে ব্যঙ্গ বিদ্রুপ করেছিলেন তারাও স্বীকার করেছিলেন সেই সময় ভারতের গণতন্ত্রে সূচনাটা মোটের উপর সফলই বলা চলে৷

প্রথম লোকসভা ভোটে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস নির্বাচনে ৪৮৯টি আসনের মধ্যে ৩৬৪টি আসন লাভ করে সরকার গঠন করেছিল। এর মাধ্যমে ভারতের বহুল প্রাচীন এই দলটি মোট ভোটের ৪৫% পেতে সক্ষম হয়েছিল। সমগ্র দেশব্যপী ৪৪.৮৭% ভোটার অংশগ্রহণ করেছিল। ওই নির্বাচনে দ্বিতীয় বৃহত্তম দলটি ছিল ভারতীয় কমিউনিস্ট পার্টি বা সিপিআই৷ তাদের ঝুলিতে ছিল ১৬টি আসন৷

ভারতের প্রথম সাধারণ নির্বাচনের পর ১৫ই এপ্রিল ১৯৫২ সালে প্রথম লোকসভা গঠিত হয়েছিল। জিভি মাভালঙ্কার হন প্রথম অধ্যক্ষ ৷ নির্বাচনের পরে পন্ডিত জওহরলাল নেহরু দেশের প্রথম নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী মনোনীত হয়েছিলেন৷ প্রথম লোকসভা তার মেয়াদ পূর্ণ করে ৪ই এপ্রিল ১৯৫৭ সালে ভেঙ্গে যায়।

তথ্য সূত্র :
১) ভারতেন নির্বাচন ও রাজনীতি ( নেহরু থেকে নরসিমা) : নিশীথ দে
২) ইউকিপিডিয়া