মিষ্টি প্রেমের ‘লাভরাত্রি’তে গা ভাসালো জেন ওয়াই

মুম্বই : প্যায়ার কিয়া নহি যাতা, হো জাতা হ্যয়৷ ফিল্মি হলেও এই কথা কিন্তু চিরন্তন সত্য৷ প্রেম করতে হয় না, হয়ে যায়৷ ভেবে চিন্তে কে কবে প্রেম করেছে বলুন তো? আর যদি ভেবে চিন্তে কেউ করে থাকে, তাহলে সেটা ভালবাসা নয়, বোঝপড়া৷ বলিউডের প্রতিটি ছবির প্রেমের গল্পে যেমন এই কথাটি প্রজোয্য, তেমনই ‘লাভরাত্রি’তেও সেই কথাই খাটল৷ মুক্তি পেল ‘লাভরাত্রি’র টিজার৷

‘ধড়ক’ ছবিতে ইশান এবং জাহ্নবীর ফ্রেশ পেয়ারিং সবে মজেছিল দর্শক, তারই মধ্যে ‘লাভরাত্রি’র দুই নয়া জুটি নিয়ে হাজির হলেন সলমন খান৷ ওয়ারিনা হুসেন এবং আয়ুশ শর্মা৷ সলমন কাউকে লঞ্চ করবেন মানেই তাঁদের এন্ট্রি ধমাকেদার হবেই৷

সুশ্রুত এবং মনীশা৷ দু’জন একে অপরের প্রেমে পাগল৷ তাদের দুষ্টু-মিষ্টি প্রেমের গল্প নিয়েই তৈরি চিত্রনাট্য৷ ছবি জুড়ে কেবল গুজরাতের ছোঁয়া৷ গুজরাতি নাচ গরবা থেকে শুরু করে, ডান্ডিয়া উৎসব, এবং এসবের মাঝে সুশ্রুত এবং মনীশার প্রেম৷ টিজারের কিছু অংশে দেখা গিয়েছে বিদেশেও গরবায়ে মেতেছে হিরো হিরোইন৷ বিদেশের ওলিতে গলিতে গুজরাতি কায়দায় নিজেদের ভালবাসার জাদু ছড়াচ্ছেন৷ ছবির প্লটের সম্বন্ধে এখন ছবির নির্মাতা কোনও মন্তব্য করতে নারাজ৷ সাধারণ দুটি ছেলেমেয়ে সুশ্রুত এবং মনীশার অসাধারণ প্রেমের কাহিনী জেন ওয়ারইয়ের কাছে পৌঁছে দেওয়াই কাজ সলমনের৷

- Advertisement -

আরও পড়ুন: নেটিজেনের তীরে বিদ্ধ ‘ধড়ক’

এবার আসা যাক ছবির অভিনেতা অভিনেত্রীদের কথায়৷ তাঁদের স্ক্রিন প্রেজেন্স যে বেশ ভালই তা টিজারেই বোঝা গিয়েছে৷ ওয়ারিনা এবং আয়ুশের রশায়নের মধ্যে রম্যান্সের ছড়াছড়ি৷ আয়ুশের, ওয়ারিনার দিকে তাকানো থেকে শুরু করে তাঁদের একে অপরকে জড়িয়ে ধরা৷ সবেতেই প্যাশনের ছোঁয়া৷ সব মিলিয়ে রোম্যান্স, ড্রামা মিলে মিশে একাকার৷ টিজারের আরেকটি দারুণ বিষয় হস, হিরো হিরোইনের প্রতিটি কস্টিউমই গুজরাতি স্টাইলে৷ গুজরাতির সঙ্গে ওয়েস্টার্নের টাচ৷ ওয়ারিনা এবং আয়ুশকে একসঙ্গে বেশ ভালই মানিয়েছে৷ তাঁদের জুটি পছন্দ হয়েছে নেটিজেনের৷

‘লাভরাত্রি’ ছবিতে সঙ্গীত একটা গুরুত্বপূর্ণ রোল প্লে করতে চলেছে৷ কারণ টিজারে যে গানটি শোনা গিয়েছে তা নিয়ে ইতিমধ্যেই হইচই পড়ে গিয়েছে৷ ছবির পরিচালনায় রয়েছেন অভিরাজ মিনাওয়ালা৷ সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন তনিশ্ক বাগচি৷ প্রযোজনায় থাকছেন সালমা খান৷ এ বছর ৫ অক্টোবর মুক্তি পাবে ছবিটি৷

আরও পড়ুন: জানেন কার ছবিতে কাজ করতে চলেছেন বুবলী?

ছবিটির টিজার মুক্তি পাওয়ার আগেই খানিক কন্ট্রোভার্সির মধ্যে পড়ে গিয়েছিলেন সলমন খান৷ বিশ্ব হিন্দু পরিসদ সলমনকে হুমকি দিয়েছিলেন ছবির নামকরণের জন্য৷ তাঁদের মতে নবরাত্রি উৎসবকে অপমান করা হয়েছে৷ ছবির নাম ‘লাভরাত্রি’ দেওয়া উচিত হয়নি৷ এমনকি তাঁরা এও ঘোষণা করেছিলেন, যে ব্যক্তি সলমনকে প্রকাশ্যে চর মারতে পারবে তাকে ৫ লাখ টাকা পুরষ্কার দেওয়া হবে৷ আর যে সিনেমার সেটকে নষ্ট করবে তাকে ২ লাখ টাকা পুরষ্কার দেওয়া হবে৷

Advertisement
---