শূন্য রানে ৬ উইকেট, রঞ্জিতে লজ্জার নজির নমন ওঝাদের

ইন্দোর: ক্রিকেটে এমন ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখে আগে কখনও পড়েনি মধ্যপ্রদেশ৷ ইন্দোরের হোলকার স্টেডিয়ামে এমনই ভয়ানক অভিজ্ঞতা হল নমন ওঝাদের৷

জয়ের জন্য অন্ধ্রপ্রদেশ ঝুলিয়ে দেওয়া ৩৪৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে মধ্যপ্রদেশ দলগত ৬ রানের মাথায় ওপেনার অজয় রোহেরার (৬) উইকেট হারায়৷ ১৫ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরেন রজত পতিদার (০)৷ ১৯ রানের মাথায় আউট হন নমন ওঝা (১)৷ একসময় ৩ উইকেটে ৩৫ রানে দাঁড়িয়ে থাকা এমপির দ্বিতীয় ইনিংস আর্যমান বিড়লার উইকেট হারানোর পরেই অবিশ্বাস্যভাবে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে৷

আরও পড়ুন: নিজেদের নাক কেটে পরের যাত্রাভঙ্গের লক্ষ্যে বাংলা

- Advertisement -

৩৫ রানের মাথায় মধ্যপ্রদেশের চতুর্থ উইকেটের পতন হয় বিড়লা ফিরে যাওয়ায়৷ পরের ২৩ বলের মধ্যে এমপি’র গোটা দল সাজঘরে ফেরে একরানও যোগ না করে৷ অর্থাৎ শূন্য রানে মধ্যপ্রদেশ তাদের শেষ ছ’টি উইকেট হারিয়ে বসে৷ গৌরব যাদব চোটের জন্য ব্যাট করতে না নামায় এমপি’র দ্বিতীয় ইনিংস শেষ হয় ৩৫ রানে৷ অন্ধ্র ম্যাচ জেতে ৩০৭ রানে৷

দ্বিতীয় ইনিংসে মধ্যপ্রদেশের হয়ে সব থেকে বেশি ১৬ রান করেন যশ দুবে৷ এছাড়া দু’অঙ্কের রান শুধু বিড়লার ১২৷ ৬ জন ব্যাটসম্যান শূন্য রানে আউট হন৷ অর্থাৎ গৌরবকে মিলিয়ে মোট সাতজন ব্যাটসম্যানের দলের ইনিংসে কোনও অবদান নেই৷

আরও পড়ুন: কিউয়ি সফরে সিদ্ধার্থের হাতিয়ার আইপিএল

এমন চূড়ান্ত ব্যাটিং বিপর্যয়েও অবশ্য রঞ্জি ট্রফিতে সব থেকে কম রানে অলআউট হওয়ার লজ্জার রেকর্ড গড়তে হয়নি মধ্যপ্রদেশকে৷ সেই রেকর্ড রয়েছে হায়দরাবাদের নামে৷ ২০১০-১১ মরশুমে রাজস্থানের কাছে ২১ রানে অলআউট হয়ে গিয়েছিল তারা৷ রঞ্জির চলতি রাউন্ডে রাজস্থানের বিরুদ্ধে প্রথম ইনিংসে ৩৫ রানে অলআউট হয় ত্রিপুরাও৷