চিকিৎসক হতে চায় প্রথম স্থানাধিকারী সঞ্জীবনী

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ভবিষ্যতে চিকিৎসক হতে চায় মাধ্যমিকে প্রথম স্থান অর্জনকারী সঞ্জীবনী দেবনাথ৷ সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখেই আগামী দিনে প্রস্তুতি নেবে সে৷

জীবনের প্রথম গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষায় অভাবনীয় সাফল্য৷ প্রায় ১১ লক্ষ পরীক্ষার্থীদের মধ্যে প্রথম হয়েছে সঞ্জীবনী দেবনাথ৷ সে কোচবিহারের সুনীতি অ্যাকাডেমির ছাত্রী৷ তার প্রাপ্ত নম্বর ৭০০-তে ৬৮৯৷ এই সাফল্য পেয়ে উচ্ছ্বসিত রাজ্যের ‘ফার্স্টগার্ল’৷ সে বলে, ‘‘আমি খুব খুশি৷’’ তবে শুধু নিজের সাফল্য নয়৷ সহপাঠীদের সাফল্যেও বেজায় খুশি সঞ্জীবনী৷ সে বলে, ‘‘আমার খুব ভালো লাগছে যে আমার স্কুলের আরও তিনজন মেধাতালিকায় স্থান পেয়েছে৷’’

আরও পড়ুন: অন্বেষা পর সঞ্জীবনী, মাধ্যমিকে ফের শীর্ষে আরও এক ছাত্রী

- Advertisement DFP -

কৃতী মেয়ে নিজের সাফল্য ভাগ করে নিয়েছে বাবা-মা ও স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সঙ্গে৷ বাবা-মায়ের সমর্থন ও শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সাহায্যের কারণেই জীবনের প্রথম গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষায় এই সফলতা অর্জন সম্ভব হয়েছে বলে দাবি সঞ্জীবনীর৷

সে বলে, ‘‘বাবা-মা কোনও দিন চাপ দেননি৷ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকারাও যে কোনও সমস্যার সমাধানে এগিয়ে আসতেন৷ কোনও সমস্যাই ফেলে রাখতেন না তারা৷ বললেই সঙ্গে সঙ্গে সমাধানের চেষ্টা করতেন৷’’ সঞ্জিবনীর বাবা পঙ্কজ দেবনাথ কোচবিহার কলেজের অধ্যক্ষ৷ মা সীমা দেবনাথ দিনহাটা হাইস্কুলের ইংরেজি ভাষার শিক্ষিকা।

আরও পড়ুন: ২০১১-র পর এই বছর ফের কমল মাধ্যমিকের পাসের হার

ভবিষ্যতে চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন দেখছে সে৷ তার জন্যই আগামীদিনে প্রস্তুতি নেবে প্রথম স্থান অর্জনকারী৷ তাই একাদশ শ্রেণিতে সে বিজ্ঞান নিয়েই পড়াশোনা করবে বলে জানিয়েছে৷ সঞ্জীবনী দেবনাথ জানিয়েছে, সে কোনও পরিকল্পনা না নিয়েই পড়াশোনা করত৷

সারাদিনে পড়াশোনা করারও নির্দিষ্ট কোনও সময় বাঁধা ছিল না তার৷ যেদিন যেমন ইচ্ছা করত সেই রকমই পড়াশোনা করত এই কৃতী ছাত্রী৷ তবে, একা নয়৷ পড়াশোনাতে সাহায্য করার জন্য তার সাতজন গৃহশিক্ষক ছিল বলে জানিয়েছে সে৷

আরও পড়ুন: মাধ্যমিকের ফল জানতে কী করবেন জেনে নিন

এদিন সঞ্জীবনী দেবনাথের প্রথম হওয়ার খবর জানার পর থেকেই তার বাড়িতে প্রতিবেশি আত্মীয়-স্বজনের ভিড়৷ মুখ্যমন্ত্রীর হয়ে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ সহ আরও অনেকে।

Advertisement
----
-----