অধিকাংশ মুসলিম অযোধ্যায় রাম মন্দির চান: উপমুখ্যমন্ত্রী

লখনউ: রাম মন্দির ইস্যুতে সুর নরম করলেন উত্তরপ্রদেশের উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব মৌর্য্য৷ জানান, অধিকাংশ মুসলিমরা চায় অযোধ্যাতেই রাম মন্দির হোক৷ এর আগের দিন রাম মন্দির নির্মাণে সংসদে আইন পাশ করানো দরকার বলে মন্তব্য করেছিলেন৷ যা নিয়ে জলঘোলা হয় বিস্তর৷ তার ২৪ ঘণ্টা পর আগের মন্তব্যের ব্যাখ্যায় এই কথা জানান উত্তরপ্রদেশের উপমুখ্যমন্ত্রী৷

মঙ্গলবার সংবাদসংস্থা এএনআইকে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, ‘‘অন্যান্য রাম ভক্তদের মতো আমিও চাই অযোধ্যায় দ্রুত রাম মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হোক৷ বিষয়টি এখন সুপ্রিম কোর্টের বিচারাধীন৷ আমরা সবাই শীর্ষ আদালতের দিকে তাকিয়ে৷ বিজেপি সবসময় রাম মন্দির নির্মাণের পক্ষে৷ এটা কোনও রাজনৈতিক বিষয় নয়৷ আমাদের বিশ্বাস জড়িত৷’’

কেশব মৌর্যের অভিযোগ, অযোধ্যায় রাম মন্দির হোক চায় না কংগ্রেস৷ বলেন, ‘‘আমাদের লোকসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা আছে৷ কিন্তু রাজ্যসভায় পর্যাপ্ত সংখ্যা নেই৷ তাই সংসদে বিল আনলেও তা রাজ্যসভায় পাশ করানো মুশকিল৷ অধিকাংশ মুসলিমরা চান অযোধ্যায় রাম মন্দির হোক৷ কিন্তু রাজনৈতিক কারণে কংগ্রেস এর বিরোধীতা করছে৷ তারা চায় না অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ হোক৷’’

- Advertisement -

এর আগে সোমবার রাম মন্দির গঠনের ক্ষেত্রে কেশব মৌর্য্য জানিয়েছিলেন, সুপ্রিম কোর্ট পদক্ষেপ করতে দেরি করলে সংসদে আইন পাশ করিয়ে বিজেপিকে এগোতে হবে৷ তিনি বলেন মানুষের পূর্ণ ভরসা রয়েছে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের ওপরে৷ তবে রায় বেরোতে দেরি হলে, বিজেপি সরকারকেই এগিয়ে আসতে হবে৷ সংসদে প্রয়োজনে বিল পাশ করিয়ে নতুন আইন প্রণয়ন করতে হবে এই ইস্যুতে৷ তবেই রাম মন্দির গঠন ও বাস্তবায়ন সম্ভব৷

তবে এর পাশাপাশি, তাঁর মত আলোচনার মাধ্যমেও সমস্যার সমাধান সম্ভব৷ তবে সেই সম্ভাবনা উজ্জ্বল নয় বলেও মনে করছেন তিনি৷ তবে সুপ্রিম কোর্টের এই রায় তাড়াতাড়ি বের করা উচিত বলে জানিয়েছেন মৌর্য্য৷
এরআগে, উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন বিজেপি বিধায়ক ও ধর্মীয় নেতা রাম বিলাস ভেদান্তি বলেন আদালত নির্দেশ দিক বা না দিক অযোধ্যায় রাম মন্দির হবেই৷ ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটের আগে যে কোনও মূল্যে মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হবে৷

রাম বিলাস বলেন, ‘‘রাম যেখানে জন্মেছিলেন সেখানেই মন্দির নির্মাণ করা হবে৷ রাম মন্দির নির্মাণের জন্য কোনও আদালতের নির্দেশের অপেক্ষা করা হবে না৷ আদালত মন্দির নির্মাণের নির্দেশ দিলে ভালো৷ না দিলেও মন্দির ওখানেই হবে৷ ২০১৯ এর আগেই মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হবে৷’’

Advertisement
---