মালদহে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল, স্থগিত জেলা পরিষদের কাজ

স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: গোষ্ঠী কোন্দলের জেরে মালদহ জেলা পরিষদের কর্মদক্ষ পদ নিয়োগ স্থগিত করা হল। এমনটাই অভিযোগ রাজনৈতিক মহলের। পূর্বঘোষিত অনুযায়ী মঙ্গলবার ছিল জেলা পরিষদের কর্মদক্ষ পদ গঠনের দিন। হঠাৎ কোনও কারণ না দেখিয়ে এই পদ নিয়োগ স্থগিত করা হয়।

২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনে এককভাবে মালদহ জেলা পরিষদ গঠন করে তৃণমূল কংগ্রেস। মালদহ জেলা পরিষদের মোট ৩৮ টি আসন রয়েছে। এর মধ্যে ৩৭ টি আসনে ভোট হয়। একটি আসনে প্রার্থীর মৃত্যুতে ভোট হয়নি। সেখানে তৃণমূল কংগ্রেস এককভাবে ২৯ টি জেলা পরিষদ দখল করে৷ বিজেপি দখল করে ছয়টি ও কংগ্রেস দখল করে দুটি। কিন্তু এরপর স্থায়ী সমিতি সুষ্ঠুভাবে গঠন করা হয়৷

আরও পড়ুন : তোমায় হৃদ মাঝারে রাখব… ফোন কেটে দিলেন বৈশাখী

- Advertisement -

কিন্তু কর্মদক্ষ পদ নিয়ে সংশয় দেখা যায় বলে অভিযোগ। কারণ মালদহ জেলা পরিষদে নয়টি মাত্র পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ পদ রয়েছে। এর মধ্যে দুটি আসন সভাধিপতি গৌর চন্দ্র মণ্ডল ও সহ-সভাপতি চন্দনা সরকার নির্বাচিত হয়। বাকি থাকে ২৭ টি আসন। ফলে কে কোন আসনের পদ পাবে এই নিয়ে শুরু হয় তৃণমূল কংগ্রেসের অন্দরে আলোচনা। সেই মতো স্থায়ী সমিতিও গঠন হয়ে যায়। কিন্তু মঙ্গলবার পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ পদ নিয়োগের দিন ঠিক হলেও তা স্থগিত করা হয়। তবে এর পিছনে অন্য কোনও কারণ রয়েছে বলে মনে করছে মালদহের রাজনৈতিক মহল।

মালদহ বিধানসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস বিধায়ক অর্জুন হালদার বলেন, ‘‘এদিন কর্মদক্ষ গঠনের দিন ছিল। শুনলাম তা স্থগিত করা হয়েছে। তবে এটা ঠিক যে হয়তো তারা নিজেরাই ঠিক করতে করে উঠতে পারেনি কাকে কোন পদ দেওয়া হবে। এর থেকেই পরিষ্কার যে এটা গোষ্ঠী কোন্দল ছাড়া অন্য কিছু নয়।’’

আরও পড়ুন : ‘নোংরা লোকের পাল্লায় পড়েই নিজেকে শেষ করলেন শোভন’

বিজেপি জেলা সহ-সভাপতি সঞ্চিত মিশ্র জানান, এক পদের জন্য তিন চার জন দাবিদার। ফলে নিজেরাই ঠিক করে উঠতে পারেনি পদগুলি। গণতন্ত্রে থেকে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করছে শাসক দল। এটা পরিষ্কার গোষ্ঠী কোন্দলের জেরেই এই পদে নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

যদিও পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ পদ নির্বাচন স্থগিত করা হলেও গোটা বিষয়টি নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন সভাধিপতি তথা তৃণমূল নেতৃত্ব।