দেবময় ঘোষ,কলকাতা: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেরলের সিপিএম-মুখ্যমন্ত্রী পিনরাই বিজয়নের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন শনিবার৷ বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন রাজ্য বিজেপি নেতা মুকুল রায়৷ টুইট করে মুকুল রায় জানান, তৃণমূল কংগ্রেসের সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেরলের সিপিআইএম মুখ্যমন্ত্রী পিনরাই বিজয়নের সঙ্গে তলে তলে সম্পর্ক রেখে চলেছেন৷

মুকুল লিখেছেন, তাঁর মনে পড়ছে রাজ্যে বাম জমানায় ৫৫ হাজার নিরীহ মানুষের প্রাণ গিয়েছে৷ ওই প্রত্যেকটি ঘটনাই রাজনৈতিক খুন৷ ২০১১ সাল অবধি ওই খুন চলেছে৷ মনে রাখতে হবে ওই ব্যক্তিদের আত্মত্যাগের ফলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন৷ তৃণমূল ক্ষমতায় এসেছেন৷ তাঁকে বিশ্বাস করে মানুষ ক্ষমতায় এনেছেন৷

Advertisement

এই কথা লিখে মুকুল বোঝাতে চেয়েছেন রাজ্যের মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিশ্বাস করছেন না৷ কারণ প্রতি নিয়ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অবিশ্বাসের কাজ করে যাচ্ছেন৷ তৃণমূলের সঙ্গে সিপিএমের সম্পর্ক নিয়ে ইতিমধ্যে সরব হয়েছে বিজেপি৷ রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য্যের বাসভবন সংস্কারের দায়িত্ব নিয়ে মমতা ইতিমধ্যেই বুঝিয়ে দিয়েছেন সিপিএমকে এখন তিনি খারাপ চোখে দেখেন না৷ ত্রিপুরায় যখন বাম জমানার অবসান ঘটল তখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন যদি বামফ্রন্ট জিতত তিনি ব্যক্তিগত খুশি হতেন৷ কিন্তু বামফ্রন্ট রাজ্যে বিজেপি-আরএসএসকে রুখতে পারেনি৷ ত্রিপুরার ঔদ্ধত্যই তাদের কাল হয়েছে৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বাম নেতাদের বোঝাপড়াকে বিজেপি আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে হাতিয়ার করতে চাইছে৷ মমতা ইতিমধ্যেই অবিজেপি ও অকংগ্রেসি ফেডেরাল ফ্রন্টের আহ্বান করেছেন৷ যে রাজ্যে যে রাজনৈতিক দল শক্তিশালী তারা নিজেদের শক্তি অনুযায়ী বিজেপি ও কংগ্রেসের বিরুদ্ধে লড়ুক চাইছেন মমতা৷ তাঁর ডাকে ইতিমধ্যেই সাড়া দিয়েছেন তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব৷

রাজধানীতে নীতি আয়োগের বৈঠকে চারজন অবিজেপিও মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠকে মমতা ছিলেন মধ্যমণি৷ মমতার সঙ্গে ছিলেন কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামী, দেশের একমাত্র বাম মুখ্যমন্ত্রী কেরলের পিনরাই বিজয়ন এবং অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী এন চন্দ্রবাবু নাইডু৷ ওই বৈঠকে বিজয়নের সঙ্গে মমতার সাক্ষাৎ সহ্য করতে পারছেন না অনেকেই৷ রাজ্যের বিজেপি নেতারা এই সাক্ষাৎকে অস্ত্র বানিয়ে ইতিমধ্যে প্রচার শুরু করে দিয়েছে৷ মুকুর রায়ের টুইট ওই প্রচারের একটি অংশ৷

প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য তৃণমূল কংগ্রেসের এক সময়ের মমতার ‘ডান হাত’ মুকুল রায় ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে রাজ্য বিজেপিতে যোগদান করে৷ বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত মুকুলকে দল থেকে সরিয়ে দিতে চেয়েছিলেন স্বয়ং মমতা৷ মুকুল বিজেপিতে আসার পর তৃণমূলের গোপন খবর ফাঁস করে দেওয়ার হুমকিও দিয়েছিলেন৷ লোকসভা ভোটের আগে মমতার বিরুদ্ধে তাঁর যাবতীয় অস্ত্রে শান দিয়ে রাখছেন মুকুল৷

----
--