মোদীর বিকল্প না হলেও দেশের ‘সেরা’ মমতাই

নয়াদিল্লি: জিএসটি হোক বা এনআরসি। কেন্দ্র তথা মোদী সরকারের বিরোধিতায় বারবার সরব হন বাংলার ‘অগ্নিকন্যা।’ সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সামনের লোকসভা নির্বাচনে আলোচনার কেন্দ্রে। নীতিশ, যোগী, পারিক্করের মত মুখ্যমন্ত্রীদের পিছনে ফেলে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তিনিই সেরা। ‘ইন্ডিয়া টুডে’র সাম্প্রতিক সমীক্ষা অন্তত সেটাই বলছে।

বিরোধী জোটের গুরু দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি। একজোট হওয়ার বার্তা নিয়ে ছুটে গিয়েছে দিল্লিতেও। মোদ্দা কথা, রাজ্যের ঘাঁটি শক্ত করে মমতার লক্ষ্য এবার দিল্লি। যদিও এখনও পর্যন্ত হওয়া বিভিন্ন সমীক্ষায় মুখ্যমন্ত্রীর সেই আশা ধোপে টিকতে দেখা যাচ্ছে না, তবে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তিনিই সবথেকে জনপ্রিয়।

এবারই প্রথম নয়। আগেও তিনি এই শিরোপা পেয়েছেন। ২০১৮-য় ‘ইন্ডিয়া টুডে’র সমীক্ষা Mood Of The Nation. সমীক্ষার রিপোর্ট বলছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই দেশের সবথেকে জনপ্রিয় মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর ঠিক পরেই রয়েছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার ও দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। তৃতীয় উত্তরপ্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ, চতুর্থ অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডু, পঞ্চম মধ্যপ্রদেশের শিবরাজ সিং চৌহান ও ছত্তিসগড়ের রামন সিং। এদের পরে রয়েছেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক। তবে নিজের রাজ্যে জনপ্রিয়তায় শীর্ষে তিনি। আর কম পারসেন্টেজ পেয়ে এই তালিকায় নিচের দিকে জায়গা পেয়েছেন মনোহর পারিক্কর, বিজয় রূপানি, দেবেন্দ্র ফড়নবিশের মত মুখ্যমন্ত্রীরা। এই নিয়ে পরপর তিনবার এক নম্বর মুখ্যমন্ত্রী হলেন তিনি।

‘ইন্ডিয়া টুডে’ দাবি করছে, এই সমীক্ষায় প্রশাসনিক দক্ষতা নয় বরং রাজনৈতিক জনপ্রিয়তাই প্রাধান্য পায়।

তবে, প্রধানমন্ত্রী তথা মোদীর বিকল্প হওয়ার দৌড়ে এখনও সেরকম কোনও আশা নেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। রাহুলের পরে তাঁর জায়গা। আর মোদী আছে মোদীর জায়গাতেই। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সেরা বিকল্প কে, এই প্রশ্নে ৪৬ শতাংশ ভোটার রায় দিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর পক্ষে। দ্বিতীয় স্থানটি পেয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও প্রাপ্ত নম্বর রাহুলের থেকে অনেকটাই কম। তাঁর ঝুলিতে মাত্র আট শতাংশ ভোট।

আর কে হবেন প্রধানমন্ত্রী, সেই প্রশ্নে অনেকটাই এগিয়ে নরেন্দ্র মোদী। ৪৬ শতাংশের পছন্দ মোদী। ২৭ শতাংশে রাহুল গান্ধী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই তালিকায় ধারে-কাছে নেই।

-------
----