কলকাতা: বিজেপিকে কোণঠাসা করতে দেশ জুড়ে শুরু হয়েছে রাজনীতির অঙ্ক। মমতা, চন্দ্রবাবু, কেসিআর প্রত্যেকেই কষছেন সেই অঙ্ক। তবে সবার আগে সেই রাজনীতির খেল দেখালেন মায়াবতী। উত্তরপ্রদেশে হাত ধরলেন দীর্ঘদিনের বিরোধী দুই নেতা-নেত্রী। শনিবার সাংবাদিক বৈঠক করে জোটের কথা ঘোষণা করলেন তাঁরা। আর সেই জোটকে স্বাগত জানালেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন জোট ঘোষণার পরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ট্যুইট করেন, ”আগামী লোকসভা নির্বাচনে এসপি ও বিএসপি-র জোটকে আমি স্বাগত জানাচ্ছি।”

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রথম থেকেই বিজেপি বিরোধী জোটের জন্য লড়াই করে যাচ্ছেন। এসপি-বিএসপি জোটের কথা তিনি আগেই বলেছিলেন। যাতে সবথেকে বেশি লোকসভা কেন্দ্রের রাজ্য উত্তরপ্রদেশে বিজেপিকে দুর্বল করে দেওয়া সম্ভব হয়।

এদিন মায়াবতী জানান, রাজ্যের ৮০ টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৩৮টিতে প্রার্থী দেবে বিএসপি ও বাকি ৩৮টিতে লড়বে এসপি। দুটি আসন কংগ্রেসকে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। আর বাকি দুটি আসন দেওয়া হচ্ছে জোটের অন্য শরিকদের।

মনে করা হচ্ছে, এই দুটি আসনের একটি বাগপত। সেটি ছেড়ে দেওয়া হবে আরএলডি প্রধান অজিত সিং-কে। কারণ, উত্তরপ্রদেশে আরএলডি-র কৃষক ভোট প্রবল শক্তিশালী। সাম্প্রতিক কয়েকটি নির্বাচনে তার প্রমাণ মিলেছে।

শনিবার দিল্লিতে যৌথ সাংবাদিক বৈঠক করে জোটের কথা ঘোষণা করলেন মায়াবতী ও অখিলেশ। উত্তরপ্রদেশের মত সর্ববৃহৎ আসন সংখ্যার রাজ্যে মহাজোট গড়লেন বিএসপি প্রধান মায়াবতী ও সমাজবাদী পার্টির অন্যতম সুপ্রিমো অখিলেশ যাদব।

১৯৯৩ সালে একই রকম জোট গঠন করা হয়েছিল। সেই পথে হেঁটেই ফের যুযুধান দুই পক্ষ হাত মিলিয়েছে। সাম্প্রতিক কয়েকটি নির্বাচনে এই রাজ্যে বিএসপি-এসপি জোট বিরাট সাফল্য পায়। তারপর থেকেই মহাজোট গড়া নিয়ে চলছিল আলোচনা।