নিজের দেশেই যারা ‘শরণার্থী, তাঁদের জন্য মন কাঁদছে মমতার

কলকাতা: আজ রবিবার বিশ্ব মানবতা দিবস। এই বিশেষ দিনটিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হৃদয়ে জায়গা করে নিলেন অসমের নাগরিক পঞ্জির তালিকা থেকে নাম বাদ যাওয়া মানুষেরা।

গত ৩০ জুলাই অসমের নাগরিক পঞ্জির দ্বিতীয় খসড়া তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। যেখানে বাদ গিয়েছে ৪০ লক্ষেরও বেশি আবেদনকারীর নাম। যা নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে সমগ্র দেশ জুড়ে। নাগরিক পঞ্জির নামে রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করার অভিযোগ উঠেছে পদ্ম পরিচালিত অসম রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন- ‘২৫ লক্ষ হিন্দুর নাম বাদ গিয়েছে অসমের নাগরিক পঞ্জিতে’

- Advertisement -

এই তালিকা প্রকাশের পর থেকেই বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অসম সরকার এবং কেন্দ্রের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করেছিলেন তিনি। একই সঙ্গে অসমে বাঙালি খেদাও অভিযান চালানো হচ্ছে বলেও দাবি করেছেন মমতা। তৃণমূল কংগ্রেসের একটি প্রতিনিধি দলও অসমে গিয়েছিল সার্বিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে। কিন্তু, ওই রাজ্যের প্রশাসনের বাধায় তা তাঁরা বিমানবন্দরের বাইরে বেরোতে পারেননি।

এই অবস্থায় রবিবার বিশ্ব মানবতা দিবসে অসমের প্রতিকূল পরিস্থিতির শিকার হওয়া মানুষদের উদ্দেশ্যে ট্যুইট করেছেন মমতা। তিনি লিখেছেন, “আজ বিশ্ব মানবতা দিবস। আমাদের সংবিধানের মুখ্য মতবাদ হচ্ছে মানিবাধিকারকে গুরুত্ব দেওয়া। এই দিনে অসমের ওই ৪০ লক্ষ মানুষের জন্য আমার হৃদয় কাঁদছে। কারণ নাগরিক পঞ্জির তালিকার জন্য তাঁরা নিজের দেশের উদ্বাস্ত হয়ে গিয়েছে।”

ফাইল ছবি

গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নবান্নে নাগরিক পঞ্জির তালিকা প্রসঙ্গে সাংবাদিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, “যে ৪০ লক্ষ মানুষের নাম নাগরিক পঞ্জির তালিকা থেকে বাদ গিয়েছে তার মধ্যে ৩৮ লক্ষ বাঙালি।” এরপরেই তিনি আবার বলেন, “এই ৩৮ লক্ষের মধ্যে ২৫ লক্ষ হিন্দু বাঙালি। বাকি ১৩ লক্ষ মুসলিম।” ৩৮ লক্ষ বাদ যাওয়া নাগরিক বাংলাভাষী বলে দাবি করেছেন মমতা।

আরও পড়ুন- ‘অমিত শাহের নিজের বাবার সার্টিফিকেট আছে তো?’

ওই দিন তালিকা থেকে বাদ যাওয়া একগুচ্ছ নাম সম্বলিত নথি পেশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। তথ্য প্রমাণ সহ তিনি তুলে ধরেন ১৯৭১ সালের আগে ভোটার তালিকায় নাম থাকা ব্যক্তিদের নাম বাদ গিয়েছে নাগরিক পঞ্জির তালিকায়।

Advertisement ---
-----