মমতা এক সময় আটকে দিয়েছিলেন শতাব্দীর ছবি : কুণাল

কলকাতা: অমর্ত্য সেনকে নিয়ে সুমন ঘোষের ছবি সেন্সর বোর্ডে আটকে যাওয়ার পর বিতর্কিত তৃণমূল সাংসদ কুণাল ঘোষ অভিযোগ করেছেন, এক সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আটকে দিয়েছিলেন শতাব্দী রায়ের ছবি৷ কুণাল এই প্রসঙ্গে ফেসবুকে একটি পোস্ট করেন৷ কুণালের অভিমত, ‘‘অমর্ত্য সেন সংক্রান্ত সেন্সর বিতর্কে যার মনে হবে প্রতিবাদ করতেই পারেন। শুধু তৃণমূলের তরফ থেকে যদি কাউকে বলাতে হয়, শতাব্দী রায় এব্যাপারে সেরা বক্তা হতে পারেন।’’ এমনকী তিনি ওই পোস্টে লিখেছেন, ‘‘মমতাদির টুইটে তো আর সবটা থাকবে না, কোনও চ্যানেল সান্ধ্য বিতর্কে শতাব্দীকে একবার ডাকবেন প্লিজ?’’

ওই পোস্টে কুণাল ব্যাখ্যা করেছেন কেমন করে সেই সময় শতাব্দী রায়ের ছবি আটকে যায়৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘মমতাদি রেলমন্ত্রী। তৃণমূল ইউপিএ-তে। একগাদা রাষ্ট্রমন্ত্রী। বহু কমিটিতেই তৃণমূল ও তার ঘনিষ্ঠরা।সাংসদ শতাব্দী রায় একটি ছবি পরিচালনা করলেন। নাম ‘পরিবর্তন’। রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের গল্প নিয়ে। শতাব্দী নিজে সাধারণ শাড়ি পরা বিরোধী নেত্রীর ভূমিকায়।’’

কুণাল ওই পোস্টে দিয়েছেন, ‘‘ মহা উৎসাহে ছবি শেষ হল। ভোটের আগেই মুক্তি হবে এবং দারুণ সফল হবে বলে সংশ্লিষ্ট সবাই আশাবাদী। তারপরই কেলেঙ্কারি। সেন্সরে তখন সদস্য মমতাদির প্রিয় শ্রমিকনেত্রী, এখন সাংসদ। এক যুবনেতা, এখন মন্ত্রী। মমতাদিকে বলা হল, এছবি মুক্তি ঠিক হবে না। শতাব্দী আপনাকে নকল করেছে। রাজনৈতিক ঘটনাপ্রবাহও আপত্তিকর। মমতাদি কান দিয়ে দেখলেন৷ শতাব্দীকে ডেকে বলে দেওয়া হল ছবি যেন মুক্তি না পায়। এতো সেন্সর বোর্ডের উপর বোর্ড!!! শতাব্দীর মাথায় হাত।’’

- Advertisement -

কুণাল জানান, শতাব্দী নানা ভাবে অনুরোধ জানালেও কাজের কাজ হয়নি৷ এই প্রসঙ্গে তিনি লিখেছেন,‘‘এনিয়ে বিতর্ক হয় তুমুল। কিন্তু মমতাদি অবস্থান থেকে সরেন নি। নিয়মমাফিক কোনও বাধা না থাকলেও সুপার-সেন্সর বোর্ডের অলিখিত কাঁচিতে শতাব্দীর দফারফা।’’ যদিও কুণালের মতে ছবিটিতে আটকে দেওয়ার মতো কিছু ছিল না৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘ছবির গুণমান নিয়ে কারুর প্রশ্ন থাকতে পারে, কিন্তু রাজনৈতিক বাধায় মুক্তি আটকে যাওয়ার কোনও কারণ ছিল না। তবু, ছবিটির ক্ষতি করা হয়। শতাব্দী যতটা পেরেছেন প্রতিবাদ করেছেন। মিডিয়াতেও খবর হয়েছিল। পরে আমি বিষয়টির গুরুত্ব বুঝে, প্রতিবাদের প্রয়োজন অনুভব করে চ্যানেল 10এ শতাব্দীর ছবির বাদ যাওয়া অংশগুলো দেখিয়ে বলেছিলাম, এতে আপত্তির কিছু ছিল না। অকারণ পরিচালকের উপর জুলুম, অবিচার হয়েছে। তারপর আমাকে যা যা শুনতে হয়েছিল, তা আমিই জানি!!

 

Advertisement
-----