স্টাফ রিপোর্টার, পৈলান: তাঁর কাছে যে সব খবর থাকে এবং তিনি যে কাউকেই রেয়াত করেন না সেকথা আরও একবার স্পষ্ট করে বুঝিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সোমবার দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে বোমা তৈরি ও বন্দুক নিয়ে মারামারি করার জন্য জেলার যুব সভাপতি শওকত মোল্লাকে কড়া বার্তা দিলেন তিনি৷

ঘটনার সূত্রপাত শওকত মোল্লার একটি বাস টার্মিনাসের আবেদন ঘিরে৷ বৈঠকে তখন হাজির রাজ্য ও জেলা প্রশাসন, পুলিস ও দলের শীর্ষ নেতা থেকে পঞ্চায়েতের জনপ্রতিনিধিরা৷ হঠাৎ শওকত মোল্লা তাঁর নিজের বিধানসভা কেন্দ্রে জীবনতলায় একটি বাস টার্মিনাসের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেন। তা শুনে একরাশ বিরক্তি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, জীবনতলায় কত লোক যায়, সেখানে বাস টার্মিনাস করতে হবে? যত সব ফালতু কথা।

Advertisement

এরপরই তিনি সরাসরি শওকত মোল্লাকে উদ্দেশ করে বলেন, ওখানে তুই বোমা তৈরি করছিস আর বন্দুক নিয়ে মারামারি করছিস। আর এখানে বাস টার্মিনাসের কথা বলছিস। এরপরই তাঁর প্রশ্ন দলের পুরনো জাহাঙ্গিরক তুই ঢুকতে দিচ্ছিস না কেন?

শওকত পাল্টা দলনেত্রীকে বলেন, জাহাঙ্গিরের নামে খুনের কেস আছে। কোর্টের অর্ডার আছে, এলাকায় ঢুকতে পারবে না। তা শোনার পর মুখ্যমন্ত্রী ধমক দিয়ে বলেন, তোকে এসব দেখতে হবে না। আইনের বিষয় পুলিস দেখবে। পরে অবশ্য মুখ্যমন্ত্রী জীবনতলায় একটি বাস দাঁড়াবার শেড করে দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট দফতর নির্দেশ দেন।

দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, শওকত যুব সভাপতি হওয়ার পর থেকে গোটা জেলাতে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বেড়ে গিয়েছে। তা নিয়ে দলনেত্রী শওকতের উপর চটে রয়েছেন।এদিন তাঁর কথাতেই সেটা স্পষ্ট হয়েছে।

এদিন আরাবুল ইসলাম ও কাইজার আহমেদকেও ধমক দিতে ছাড়েননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

----
--