গেরুয়া মোকাবিলায় সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়েই ভরসা মমতার

স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: বাংলায় বিজেপির বাড়বাড়ন্ত রুখতে এবার সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংকেই হাতিয়ার করতে চাইছেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ শুক্রবার দলের ছাত্র-যুবাদেরও সেই বার্তাই দিলেন তিনি৷

এদিন হাওড়ার ডুমুরজোলা স্টেডিয়ামে তৃণমূলের দক্ষিণবঙ্গ শাখার ছাত্র-যুবদের সম্মেলন ছিল৷ দলের ছাত্র-যুবাদের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কী বার্তা দেন তা জানতে ঘাসফুল শিবির যেমন অধীর আগ্রহে ছিল তেমনই কৌতুহল ছিল রাজনৈতিক মহলের৷

ছাত্র-যুবাদের উদ্দেশ্যে এদিন মমতা বলেন, শুধু ভাষণ দিলে হবে না৷ সোশ্যাল নেটওয়ার্কটা ভাল করে করতে হবে৷ জেলায় জেলায় এই নেটওয়ার্কটা আরও স্ট্রং করতে হবে৷ ওরা ফেসবুক, টুইটারে উলটো পালটা বকে বেড়ায়৷ কোটি কোটি টাকা খরচ করছে৷ আপনারা আমাদের কলম, বুদ্ধি দিয়ে এই কুৎসার জবাব দিন৷ আরও ভাল জন সংযোগ গড়ে তুলুন৷ ভালো নেতা হতে গেলে যে লোভ সম্বরণ করতে হবে দলের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সেই বার্তাও দেন দলনেত্রী৷

- Advertisement -

তৃণমূল এখন ক্ষমতায়৷ সদ্য দু-দুটো উপ-নির্বাচনেও তারাই জিতেছে৷ তারপরও সোশ্যাল নেটওয়ার্ককে মমতার এতটা দেওয়া তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷ একটা অংশের ব্যাখা, উপনির্বাচনে বিজেপি আসন না জিতলেও সিপিএম-কংগ্রেসকে হটিয়ে দ্বিতীয় আসনে বসে পরেছে৷ যে উদ্বেগ মুখ্যমন্ত্রীর জয়ের আনন্দকে অনেকটাই ম্লান করে দিচ্ছে৷

পড়ুন: ‘রাজ্যে কতগুলো স্বার্থপর দৈত্য তৈরি হয়েছে’, বিরোধীদের তীব্র আক্রমণ মমতার

কিন্তু হঠাৎ সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ে জোড় কেন?রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা প্রথমেই মনে করছেন, নতুন প্রজন্মের কাছে দ্রুত পৌঁছতেই এর থেকে ভাল মাধ্যম আর কিছু হতে পারে না৷ তাই এপথেই হাঁটতে চান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

মোটামুটি যাঁদের সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ে সাইটে যাতায়াত আছে তাঁরা জানেন বিজেপি সেখানে যথেষ্ট সক্রিয়৷ ফেসবুকে তাদের বেশ কয়েকটি গ্রুপ আছে৷ সূত্রের খবর, এরজন্য বিজেপির একটি আইটি সেলও আছে৷ এছাড়া গেরুয়া শিবিরের অধিকাংশ নেতা-নেত্রীরা ফেসবুক-টুইটারে নিয়মিত তাঁদের কর্মসূচী, রাজনৈতিক মন্তব্য বা ছবি পোস্ট করেন৷ ফলে জেন-ওয়াইয়ের সঙ্গে তাঁদের প্রত্যক্ষ সংযোগ সহজ হয়৷ দু-দুটো উপনির্বাচনের ফলে যা প্রমাণিত৷

তৃণমূল আগের থেকে এখন অনেক বেশি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ে সক্রিয়৷ তবে এক যুব নেতার কথায়, ভালোর শেষ নেই৷ নেত্রী যখন বলেছেন তখন আমাদের আরও বেশি করে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ে নজর দিতে হবে৷
মমতার এই নয়া কৌশলে বাংলায় গেরুয়া বৃদ্ধি কতটা বাধা পায় তার উত্তর অবশ্য সময়ই দেবে৷

Advertisement ---
---
-----