ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: এনআরসি ইস্যুতে মোদী সরকারকে বিঁধতে বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহকেই বেছে নিল তৃণমূল৷ শনিবার নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সামনে তৃণমূল সাংসদ মমতাবালা ঠাকুরের নেতৃত্বে একদল মতুয়া ব্যানার, প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন নিয়ে বিক্ষোভ দেখান৷

উল্লেখযোগ্যবাবে সেই বিক্ষোভে দাঁড়িয়েছিলেন, নরেন্দ্র মোদীর বেশধারী এক ব্যক্তি৷ ওই ব্যক্তি নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ সেজে হাতে এনআরসি বিরোধী প্ল্যাকার্ড নিয়ে অন্যান্য বিক্ষোভকারীদের মাঝে দাঁড়িয়েছিলেন৷ ওই ব্যক্তিকে গত ২১ জুলাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভামঞ্চের সামনেো দেখা গিয়েছিল৷

Advertisement

পড়ুন: মঞ্চের পাশে তৃণমূলের ব্যানার খুলবেন না, দলকে নির্দেশ অমিত শাহের

প্রসঙ্গত, মেয়ো রোডে দুপুর ১২টা থেকে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা অমিত শাহের উপস্থিতিতে শুরু সভা। হাজির থাকবেন রাজ্য বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বও। এই উপলক্ষ্যে বিমানবন্দর থেকে সভাস্থলে উপচে পড়ছে মানুষ৷ জেলায় জেলায় যেখানে বিক্ষোব প্রদর্শন চলছে সেখানে আগামিকাল কলকাতায় তৃণমূলের ধিক্কার দিবস কর্মসূচী রয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷

শনিবার মেয়ো রোডে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ যখন বক্তব্য রাখবেন, তার ঠিক পাশেই দেখা যায় লম্বাটে দুই ফুট বাই আধ ফুটের একটা ফ্লেকস্৷ তাতে লেখা, ‘বাংলার শত্রু বিজেপি দূর হঠো’৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি লাগানো ফ্লেকস ব্যানার বা তৃণমূল কংগ্রেসের ঝান্ডার পাশে বাংলা ও ইংরেজিতে লাগানো এই ফ্লেক্সগুলিতে যথাস্থানেই রেখে দিতে বলেছেন অমিত৷

দলীয় কর্মীদের বৃহস্পতিবার রাতেই সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ‘Anti Bengal BJP Go Back’ কিংবা ‘বাংলার শত্রু বিজেপি দূর হঠো’ ব্যানারগুলি তাঁর মঞ্চে উঠে বক্তব্য রাখার সময় যেন ওই স্থানেই টাঙানো থাকে৷ কোনও বিজেপি কর্মীরা যেন তৃণমূল কংগ্রেসের ফ্লেকস্ বা ঝন্ডায় হাত না লাগায়৷ রাতেই বিজেপি কর্মীদের মধ্যে সর্বভারতীয় সভাপতির নির্দেশ এই প্রচারিত হয়েছে৷ তবে রবিবার সকাল হতেই দেখা যায় সেগুলি যথাস্থানে থাকলেও তার ওপর দিয়ে দেওয়া হয়েছে গেরুয়া-সবুজ কাপড়৷

----
--