‘মহরম কমিটির সঙ্গে পুজো কমিটিগুলির মধ্যে গোলমাল বাধানোর চক্রান্ত হয়েছিল’

ঝাড়গ্রাম : এ রাজ্যে মহরম কমিটির সঙ্গে পুজো কমিটিগুলির মধ্যে গোলমাল বাধানোর চক্রান্ত করা হয়েছিল৷ মঙ্গলবার ঝাড়গ্রামে প্রশাসনিক সভায় এমনই অভিযোগ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এ প্রসঙ্গে তিনি টেনে আনেন উত্তরপ্রদেশ-সহ একাধিক রাজ্যের উদাহরণ৷ বাংলাদেশের কথাও টেনে আনেন৷ জানান, অন্য কোথাও মহরমের জন্য পুজোর বিসর্জন পিছিয়ে দেওয়া হলে কোনও বিতর্ক হয় না৷ কিন্তু এ রাজ্যে হলে আদালতের দ্বারস্থ হন বিরোধীরা বলেও তিনি অভিযোগ করেছেন৷ পাশাপাশি তিনি স্পষ্ট করেছেন যে, মানুষের রায়ই সবচেয়ে বড় রায়৷

প্রসঙ্গত, গত বছর থেকে মহাদশমীর পরদিনই পড়ছে মহরম৷ তাই এ নিয়ে গত বছর থেকেই বিতর্ক হচ্ছে৷ গতবারও রাজ্য সরকার মহরমের জন্য দশমীর বিসর্জনে বিধিনিষেধ টেনেছিল৷ সেবারও আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছিল বিতর্কের জল৷ কলকাতা হাইকোর্টের সিঙ্গল ও ডিভিশন বেঞ্চে খারিজ হয়ে গিয়েছিল রাজ্যের আবেদন৷ আদালতের সমালোচনার মুখেও পড়তে হয়েছিল রাজ্যকে৷ তার পর এবারও মহরমের জন্য দশমীর বিসর্জনের উপর বিধিনিষেধ আরোপ করেছিল রাজ্য সরকার৷ কিন্তু সেই নিষেধ এবারও কলকাতা হাইকোর্ট খারিজ করে দেয়৷

তা নিয়ে রাজ্যজুড়ে ব্যাপক বিতর্কও হয়৷কিন্তু সেই বিতর্ক এ রাজ্যে উৎসবের মরসুমের গোলমাল পাকানোর জন্যই করা হয়েছিল বলে মুখ্যমন্ত্রী এদিন অভিযোগ করেন৷ তাই প্রশ্ন উঠছে, তাহলে কি প্রশাসনের কাছে গোপন কোনও সূত্র থেকে গোলমাল হতে পারে বলে কোনও খবর এসেছিল৷যদিও সেই প্রশ্নের উত্তর প্রশাসনের কোনও মহল থেকেই পাওয়া যায়নি৷

Advertisement ---
---
-----