ডাক্তাররা জানিয়েছিলেন তিনি মৃত৷ ঠিকানা হয়েছিল মর্গের ঠান্ডা ঘর৷ কিন্তু তার পরেই মিরাকল৷ ‘লাশ’ উঠে ফের যোগ দিল পার্টিতে৷ চোখ কপালে তোলা এমন ঘটনাই ঘটেছে রাশিয়ায়৷

বছরশেষের এই সয়টা মজে আছে পার্টির মস্তি-মৌজে৷ বন্ধুদের সঙ্গে পার্টি করতে গিয়ে মাত্রারিক্ত ভদকা পান করেন এক ব্যক্তি৷ পার্টি চলাকালীনই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন৷ তড়িঘড়ি তাঁকে নিয়ে যাওয়া এক হাসপাতালে৷ ডাক্তাররা পরীক্ষা করে জানান ওই ব্যক্তি মৃত৷ অগত্যা তাঁর ঠিকিনা হয় লাশঘরে৷ পুলিশের মুখপাত্র আলেক্সে স্টোয়েভ জানান, স্থানীয় মর্গ সেদিন প্রায় ভর্তি ছিল৷ এমনকী মর্গের মেঝে ও ফ্রিজাররুমেও ভর্তি ছিল লাশ৷ আর সেখানেই ঘটে এই প্রায় অলৌকিক ঘটনা৷ অন্ধকার লাশঘরের ভিতরেই জীবন ফিরে পান ওই ব্যক্তি৷ কীভাবে এই ঘটনা ঘটে তা নিয়ে এখনও ধন্দে চিকিৎসকরা৷

তাঁদের অনুমান, মাত্রাতিরিক্ত অ্যালকোহলের প্রভাবে তাঁর মস্তিষ্কের ক্রিয়া এমনভাবে ব্যাহত হয়েছিল , যাতে তাঁকে মৃত বলে মনে করা হয়েছিল৷ সম্ভবত মর্গের ফ্রিজার রুমের ঠান্ডাতেই সে সমস্যা মেটে৷ মস্তিষ্ক স্বাভাবিক হতে শুরু করতেই প্রাণ ফিরে পান তিনি৷

কিন্তু ‘লাশ’ থেকে জলজ্যান্ত মানুষ হয়ে ওঠার অভিজ্ঞতা কীরকম? ওই ব্যক্তি জানিয়েছেন, অন্ধকারে মধ্যে আছন্ন অবস্থা থেকে উঠে প্রথমে তিনি বুঝেই উঠতে পারছিলেন তিনি ঠিক কোথায় আছেন৷ ঘোর কাটতে হাতে ঠেতে মানুষের ঠাণ্ডা শরীর৷ তখনই প্রচণ্ড ভয় পেয়ে যান তিনি৷ চিৎকার করে মর্গ থেকে বেরিয়ে আসেন৷ মর্গের রক্ষীরাও বিস্ময়ে দেখেন, চিৎকার করতে করতে লাশঘর থেকে জীবন্ত হয়ে ছুটছে এক ‘লাশ’৷ পুরো ঘটনা জানানো হয় পুলিশকে৷ পুলিশ ওই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেই জানতে পারে এই অদ্ভুত ঘটনা?

অবশ্য ‘লাশ’ থেকে জীবন্ত হওয়ার পর তিনি ফিরে যান বন্ধুমহলে৷ সেখানে তাঁকে দেখে বন্ধুরা নিজের চোখকেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না৷ তবে বাস্তব যে কল্পনার থেকেও সত্যি, সে কথাই একটা সময় মেনে নেন তারা৷ আর তাই ফের শুরু হয় পার্টি৷ বন্ধুর ‘পুর্নজন্ম’ সেলিব্রেট করা শুরু হয় পানীয়র ফোয়ারায়৷ মর্গ থেকে উঠে রাতভর ফের পার্টিতে মেতে ওঠে ঘণ্টাকয়েক আগে ঘোষিত ‘লাশ’ও৷