স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: চুরি করতে এসে প্রহরীর হাতে ধরা পড়ে গণপিটুনি খেল এলাকার এক কুখ্যাত যুবক৷ ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার ভোর রাতে উত্তর ২৪ পরগনার শ্যমনগরের নতুন গ্রামে৷

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই এলাকার স্থানীয় বিশ্বজিৎ কর্মকারের সোনার দোকানে চুরি করতে আসে চার জনের এক স্বশস্ত্র ডাকাত দল৷ এলাকার এক নৈশ প্রহরীর হাতে ধরা পড়ে যায় এক ডাকাত।

Advertisement

আরও পড়ুন: ভুয়ো সরকারি ওয়েবসাইট তৈরি করে প্রতারণার অভিযোগ

ওই প্রহরীর চিৎকার শুনে স্থানীয় বাসিন্দারা ঘটনাস্থলে ছুটে আসে৷ তাঁদের যৌথ প্রচেষ্টায় ক‍্যানিং থেকে ডাকাতি করতে আসা চার জনের এক স্বশস্ত্র ডাকাতের দলের মধ্যে একজনকে ধরে ফেলেন তাঁরা। প্রায় লক্ষাধিক টাকার সোনা ও রুপোর গহনা ডাকাতি করে তারা পালিয়ে যাচ্ছিল৷ বাকি তিন স্বশস্ত্র দুষ্কৃতী পলাতক।

কর্তব্যরত নৈশ প্রহরী মহেশ দাস বলেন, ‘আমি অন্যান্য দিনের মতই এই এলাকায় পাহাড়া দিচ্ছিলাম। সেই সময় ওই দুষ্কৃতীরা হানা দেয় এবং বন্দুক দেখিয়ে আমাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয় তারা। বলে চুপ করে বসে থাকতে। ওরা তালা ভেঙে ওই সোনার দোকানে ঢুকে লুঠপাট শুরু করে। পালানোর সময় চিৎকার চেঁচামেচিতে পাড়ার লোকজন জড়ো হয়ে যায়৷ আর তাঁদের হাতে একজন ডাকাত ধরা পড়ে যায়৷ কিন্তু বাকিরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়৷’

আরও পড়ুন: ইংল্যান্ড থেকে দেশে ফিরেই বিয়ে বাড়িতে ধোনি

এলাকার স্থানীয়দের দাবি, এই এলাকায় এর আগে এতবড় ডাকাতির ঘটনা ঘটেনি৷ ডাকাতি করে পালানোর সময় ওই ডাকাত দলকে ধাওয়া করে একজনকে জাপটে ধরে ফেলে ওই নৈশ প্রহরী। বাকি তিনজন স্বশস্ত্র দুষ্কৃতী এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। এদের প্রত‍্যেকের কাছে আগ্নেয়াস্ত্র ছিল বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়। যে দুষ্কৃতী ধরা পড়ে তার কাছ থেকে একটি গুলিভরতি রিভালবার এবং একটি মোবাইল ফোন উদ্ধার হয়েছে। এরপর স্থানীয় বাসিন্দারা ওই দুষ্কৃতিকে শুরু করে গণপ্রহার।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় জগদ্দল থানার পুলিশ৷ ঘটনাস্থলে উত্তেজিত জনতার প্রহারে রক্তাক্ত ওই দুষ্কৃতীকে উদ্ধার করে৷ এরপর তাকে গুরুতর জখম অবস্থায় ভাটপাড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়৷ অভিযুক্ত সুস্থ হলে তাকে গ্রেফতার করা হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে। এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে জগদ্দল থানার পুলিশ।

আরও পড়ুন: দেশব্যাপী ধর্মঘট শুরু, ক্ষতি দিনে ৪ হাজার কোটি

ভাটপাড়া পুরসভার স্থানীয় তৃনমূল কাউন্সিলর প্রবীর বৈদ্য জানান, শুক্রবার ভোর রাতে এই দুঃসাহসিক ডাকাতির ঘটনা ঘটে। বিশ্বজিৎ কর্মকারের দোকানে ডাকাতি হচ্ছিল। দুষ্কৃতীদল পালানোর সময় স্থানীয়দের হাতে একজন ধরা পড়ে যায়। তার থেকে মোবাইল এবং গুলিভরতি বন্দুক উদ্ধার করেছে পুলিশ। জগদ্দল থানার পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত করে ধৃত দুষ্কৃতীর সূত্র ধরে অন্যদের গ্রেফতার করতে পারবে৷ পাশাপাশি দ্রুত এই ডাকাতির কিনারা করতে পারবে৷

----
--