ছবি-মিতুল দাস

 সারা দেশ ক’দিন আগেই তাঁকে কুর্নিশ জানিয়েছে৷ দেশের প্রথম রূপান্তরকামী  অধক্ষ্যা তিনিই৷ সেই মানবী বন্দ্যোপাধ্যায়কেই শহর দেখল অন্য রূপে৷ হোপ ফাউন্ডেশনের বাচ্চাদের জন্য ‘সিডজ’ এর আয়োজনে এক ফ্যাশন সোয়ে মার্জার সরণীতে হাঁটলেন তিনি৷  আর ফ্যাশনের দুনিয়া দেখল আক্ষরিক অর্থেই ‘মানবী’ মুখ৷

শহরের এক ফ্যাশন শোয়ে মানবী বন্দ্যোপাধ্যায়৷ ছবি-মিতুল দাস
শহরের এক ফ্যাশন শোয়ে মানবী বন্দ্যোপাধ্যায়৷ ছবি-মিতুল দাস

এ ফ্যাশন শো বিলাসিতার নয়, গ্ল্যামারের নয় বরং মানবিকতার৷ হোপ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দুঃস্থ বাচ্চাদের আর একটু ভালো জীবনের সুযোগ করে দিতে ফ্যাশনের দুনিয়ায় পা রেখেছিলেন বিভিন্ন মহলের সেলেবরা৷ মুম্বই থেকে এসেছিলেন সোহা আলি খান, মান্নারা চোপড়া, ডিম্পি গাঙ্গুলি৷ ছিলেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, আবির চট্টোপাধ্যায়স এনা সাহা সহ টলিমহলের নানাজন৷ এরকমই এক মনবিক কারণে এগিয়ে আসেন ‘মানবী’৷

Advertisement

হোপ ফাউন্ডেশনেরই এক বাচ্চাকে সঙ্গে নিয়ে লাল-সোনালি শাড়িতে এদিন র‍্যাম্পে হাঁটেন তিনি৷ বাচ্চাটিকে কোলে নিয়ে হাঁটতে হাঁটতে একসময়  তাঁর চোখে জলও দেখা যায়৷ বস্তুত তিনি নিজেই তো দীর্ঘ এক সংগ্রামের প্রতিনিধি৷ তৃতীয় সত্তার প্রতিষ্ঠা করতে বহু লড়াই করতে হয়েছে তাঁকে৷ এই বাচ্চাদের জীবনের সংগ্রাম তাই কোথায় যেন এক অনুভবে মিলিয়ে দিয়েছে তাঁকেও৷ আর তাই ফ্যাশনের রঙিন আলোর মঞ্চও চিকচিক করে উঠল তাঁর চোখের জলে৷

----
--