মাতৃদুগ্ধ পান করানোর দৃশ্যে নিন্দিত হয়েছিলেন মন্দাকিনী

বিশেষ প্রতিবেদন: সন্তানকে মাতৃদুগ্ধ পান করাচ্ছেন মডেল অভিনেত্রী গিলু যোশেফ৷ সেই ছবির প্রচ্ছদে এনেছে মালয়ালম ম্যাগাজিন গৃহলক্ষ্মী৷ ফলে বিতর্ক চরমে৷ অশ্লীল রুচির পরিচয় দিয়ে ম্যাগাজিনটির প্রকাশক ও মডেল উভয়ের নামেই মামলা দায়ের হয়েছে। অথচ দিনভর রাশিরাশি অশ্লীল ছবি শেয়ার ও আপলোড হলেও কারোর মাথা ব্যথা হয়না৷ প্রশ্ন উঠছে, যদি প্রায় বসনহীন হয়ে তিনি কোনও ছবি প্রকাশ করতেন তাহলে কি এত চর্চা হত ? আর চর্চার জেরে হাই রেটে পৌঁছে যাচ্ছেন অভিনেত্রী গিলু৷ ঠিক যেমন করে একসময় দেশজুড়ে ঝড় তুলেছিলেন মন্দাকিনী৷

তাৎপর্যপূর্ণ ব্যাপার সেবার অর্থাৎ ১৯৮৫ সালে প্রকাশ্যে মন্দাকিনীও মাতৃদুগ্ধ পান করিয়ে বিতর্কের কেন্দ্রে এসেছিলেন৷ ৩২ বছর আগের ভারত জানতে চেয়েছিল এটা কেন হল ? উত্তর দেননি মন্দাকিনী৷ তবে বিতর্কের কারণে তাঁরও রেট বেড়ে গিয়েছিল৷ পরবর্তী সময় বলি দুনিয়ার ব্যস্ত অভিনেত্রী হিসেবেই তাঁকে দেখা গিয়েছে৷ একাধিক ছবি হিট৷ তবে যে কারণে মন্দাকিনী বারবার আলোচিত হবেন সেটি হল ‘রাম তেরি গঙ্গা মইলি’ ছবির সেই ট্রেন সফরের মুহূর্তটির জন্য৷

পড়ুন: এই ছবির ‘সভ্যতা’ নিয়ে প্রশ্ন তুলে মডেলের বিরুদ্ধে মামলা

- Advertisement -

মন্দাকিনী ও পিলু জোসেফের মধ্যে অন্তত দু’ দশকের ব্যবধান৷ এর মধ্যে সমাজ জীবনে বিস্তর পরিবর্তন ঘটে গিয়েছে৷ প্রকাশ্যে বেড়েছে অশ্লীল ছবির চর্চা৷ তবু মাতৃদুগ্ধ পানের মতো বিষয়ের স্বাভাবিকতা ও প্রয়োজনীয়তাকে এখনো অশ্লীল করে দেখা হচ্ছে৷ হতে পারে গিলু জোসেফের ছবিটি উত্তেজক৷ কিন্তু তার প্রচার কেন ক্ষেত্রে হয়েছে সেটাও তো লক্ষনীয়৷ গৃহলক্ষ্মী নামের মালয়ালি ম্যাগাজিন কর্তৃপক্ষের সম্পাদক বলছেন, শিশুদের মাতৃদুগ্ধ পান করানোর প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করা এবং এ বিষয়টি নিয়ে তাদের মধ্যে দীর্ঘদিনের যে ‘ট্যাবু’ আছে তা দূর করতেই এই প্রয়াস। তিনি আরও বলেন, “একমাস আগে এক ব্যক্তি ফেসবুকে তার স্ত্রীর শিশুকে দুধ পান করানোর ছবি প্রকাশ করেছিলেন। তারা চেয়েছিলেন এমন ছবি দিয়ে জনসমাগম এলাকাতেও মায়েদের স্তন্যপান করানোর বিষয়টি নিয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করতে। কিন্তু লোকজন বিষয়টি ভালোভাবে নেয়নি। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সবাই ওই নারীকে কটূক্তি করেছে।”

গিলু জোসেফ প্রবাসী ভারতীয়৷ তিনি সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর অন্যতম শহর দুবাইতে থাকেন৷ একাধারে কবি ও সুরকার৷ আবার বিমান সেবিকা হিসেবেও কাজ করেছেন৷ পাশাপাশি মডেল৷ জীবনযাত্রায় খোলামেলা৷ সেই কারণেই ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদ পাতায় সন্তানকে মাতৃদুগ্ধ পান করানোর মতো ছবি দিতে তাঁর আপত্তি থাকবে না তাই স্বাভাবিক৷ যখন পত্রিকার তরফে অফার এসেছিল তখন দেরি করেননি৷ চিত্রগ্রাহক ও গ্রাফিক্স ডিজাইনের অনবদ্য হাতের ছোঁয়ায় গিলুর ছবি রীতিমতো ভাবিয়ে তুলছে৷

সন্তানকে মাতৃদুগ্ধ পান করানোর মতো দৃশ্যে অভিনয় করেছিলেন মন্দাকিনী৷ এই মুহূর্তটি ছাড়াও রাম তেরি গঙ্গা মইলি সিনেমার আরও অনেক এমন দৃশ্য আছে যা রীতিমতো উত্তেজক৷ অন্তত ফেলে আসা ’৮০ দশকের নিরিখে তো বটেই৷ তারও পরে মন্দাকিনী আরও যে সব উত্তেজক মুহূর্ত উপহার দিয়েছেন বলিউডের দর্শকদের৷ তবে সেসব নিয়ে কমই চর্চা হয়৷

মন্দাকিনী আদতে অ্যাংলো ইন্ডিয়ান পরিবারের৷ খোলামেলা সংস্কৃতিতে অভ্যস্ত৷ শোনা গিয়েছিল, কিংবদন্তি অভিনেতা ও পরিচালক রাজকাপুরের কাছে সেই বিশেষ মুহূর্তটির কথা শুনেই নাকি খানিকটা থমকে গিয়েছিলেন মন্দাকিনী৷ খানিকটা ভেবে রাজি হয়েছিলেন৷ বাকিটা ইতিহাস৷ অন্তত মাতৃদুগ্ধ পানের মতো প্রয়োজনীয় পদক্ষেপটির জন্য সরকারের অনেক টাকা বেঁচে গিয়েছিল৷

Advertisement ---
---
-----