বড় ক্লাব থেকে এঁদো গলি! থিমের বাজারে হটকেক পদ্মাবতী

সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: পুজোয় এবার রানী পদ্মাবতীকে নিয়েই মাতামাতি। বছরের এখনও পর্যন্ত সবথেকে বড় বক্স অফিস হিট তাঁকে নিয়ে বানানো ছবি ‘পদ্মাবত’। তাই দুর্গাপুজোর বাজারেও তাঁকে নিয়েই টানাটানি। কলকাতার বড় স্পন্সরওয়ালা ক্লাব থেকে শুরু করে সাবেকি ধ্যানধারণায় বিশ্বাসী ক্লাব কিংবা হাওড়ার এঁদো গলির নাম করা সার্বজনীন পুজো প্রত্যেকে নেমে পড়েছে পদ্মিনীর দুর্গ বানাতে।

হিট সিনেমার সেট নিয়ে দুর্গাপুজোর থিম তৈরির ট্রেন্ড শুরু হয়েছিল গত বছরেই। সৌজন্যে শ্রীভূমি স্পোর্টিং। এবার এই ট্রেন্ডে গা লাগিয়েছে কলকাতাসহ হাওড়ার ক্লাবও। লেকটাউনের ক্লাব শ্রীভূমি সবার প্রথমে ঘোষণা করেছিল বাহুবলীর পর তাদের এই বছরের পুজোর বিষয় পদ্মাবত। অনেকেই ভেবেছিলেন এই বিষয় এক ও অদ্বিতীয় হবে লেকটাউনের হেভিওয়েট ক্লাবই। কিন্তু বাস্তব অন্য চিত্র দেখাচ্ছে। মহম্মদ আলি পার্কও তাদের বিরাট প্রাঙ্গন জুড়ে পদ্মবতের চিতোর দুর্গ বানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গঙ্গা পেড়িয়ে হাওড়ায় এলেও শোনা যাচ্ছে পদ্মাবতের কাহিনী। এখানকার হেভিওয়েট ক্লাব জাতীয় সেবা দল। তাদেরও এবারের পুজোর বিষয়ও সেই পদ্মাবত। মণ্ডপে মন্ডপে পদ্মাবতের যেন ছড়াছড়ি।

তবে পদ্মাবত থিম বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে ক্লাব কর্তাদের প্রত্যেকের যুক্তি অবশ্য আলাদা। শ্রীভূমি যেমন বরাবর প্রচারের আলোয় থাকতে পছন্দ করে। কখনও থাকে হিরের মুকুট, কখনওবা বিশাল ঝাড়বাতি। গত বছরের বাহুবলী প্যান্ডেলের ভিড় গিনেস বুকের খাতায় নাম লিখিয়েছিল। পুজোর খুঁটিপুজোর দিন পুজোর প্রধান পৃষ্ঠপোষক বিধায়ক সুজিত বসু বলেছিলেন, “বছরের সবথেকে বড় হিট সিনেমা পদ্মাবত। আর প্রচুর বিতর্ক হয়েছিল ছবি নিয়ে। অনেকে অনেক কথা বলেছে।” সোজা কথায় আলোচনার মধ্যে থাকা কোনও কিছু যদি দুর্গাপুজোর বিষয় হয় তবে সেখানে ভিড় হবেই। সেটাই টার্গেট শ্রীভূমির। অন্যদিকে মহম্মদ আলি পার্কের যুক্তি তাদের বিশাল বড় জায়গা। এত বড় জায়গায় বড় কিছু করলেই বেশি মানাবে। আর পদ্মাবতের সঙ্গে ইতিহাসের যোগ রয়েছে। তাই তাদের এই বছরের পরিবেশনা পদ্মাবতের চিতোর দুর্গ। হাওড়ার জাতীয় সেবা দলের দাবি, পদ্মাবতের মাধ্যমে নারী শক্তি ও স্বাধীনতার আত্মপ্রকাশ দেখানো সম্ভব। দুর্গা পুজোতেও সঙ্গে এই বিষয় আরও প্রাসঙ্গিক।

- Advertisement -

পদ্মাবতের দুর্গ কে কেমন বানাবে তা সময় বলবে। কে কেমন ভিড় টানবে বা কে পদ্মাবতের চিতোর দুর্গ বানিয়ে কত বেশি পুরস্কারের ঝুলি ভড়বে সেটা বোঝাও এখন সম্ভব নয়। তবে ঝোল থেকে ঝাল হয়ে অম্বলে ঘ্যাঁটচচ্চরি একটাই। তিনি রানী পদ্মবতী।

Advertisement ---
-----