‘অনেক তৃণমূল নেতাই বিজেপির সাথে দিল্লিতে গোপনে যোগাযোগ রাখছে’

মালদহ: ‘বিজেপির রথকে ভয় পাচ্ছে তৃণমূল৷ তাই নানা কৌশলে তাকে আটকাতে চাইছে৷ কিন্তু বিজেপির রথকে আটকাতে এলে, তাঁকে রথের চাকায় তলায় পিষে মারা হবে৷’ এমনই গরমাগরম বক্তব্য রেখেছিলেন বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়৷ মঙ্গলবার কার্যত সেই রাস্তাতেই হেঁটে আরও একধাপ এগিয়ে বোমা ফাটালেন রাহুল সিনহা৷

মঙ্গলবার মালদার বৈষ্ণবনগরে গণতন্ত্র বাঁচাও যাত্রাকে কেন্দ্র করে এক প্রচার সভায় লকেট চট্টোপাধ্যায়ের এই বক্তব্যকে সমর্থন করলেন এবার বিজেপির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক রাহুল সিনহা। তিনি বলেন, ‘তৃণমূল যদি রথ আটকানোর চেষ্টা করে তাদের রথের চাকার তলায় পিষে দেওয়া হবে। রাজ্যের তিনটি প্রান্ত থেকে তিনটি রথ বের হবে এবং রথযাত্রাকে কেন্দ্র করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাজ্যে পাঁচটি জনসভা করবেন। আর এতেই তৃণমূল আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে।’

আরও পড়ুন : মমতার নির্দেশে ‘বিদ্রোহী-বিক্ষোভকারী’-কে সংগঠন থেকে ছাঁটাই

তাঁর দাবি ‘অনেক তৃণমূল নেতাই আমাদের সাথে দিল্লিতে গোপনে যোগাযোগ রাখছে। সিআইডির ভয়ে তারা এখন আসতে পারছে না। বাংলায় রথ চলতে শুরু করলেই একের পর এক তৃণমূল নেতা বিজেপিতে আসবে। পিসি ভাইপো ছাড়া তৃণমূলে কেউ থাকবে না। বর্তমান সরকার একটা দেউলিয়া সরকার। যে সরকার কোনও মহিলাদের সম্মানের দাম ১০হাজার থেকে কুড়ি হাজার টাকা করে রেখেছে, গোটা ভূ-ভারতে এরকম উর্বর মস্তিষ্ক মুখ্যমন্ত্রী আর পাওয়া যাবে না। ২০১৯ এ আমাদের কেন্দ্রীয় সভাপতি অমিত শাহ ডাক দিয়েছেন রাজ্যে অন্তত ২২ টি আসন বিজেপি পাবে। আমি বলছি ১২ টি আসন পেলেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার আর থাকবে না। আবার ভোট হবে এবং এই রাজ্যে বিজেপি আসবে। বিজেপি শুধু আসার অপেক্ষায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘কিছুদিন পর থেকেই এত বিজেপি নেতারা সারা ভারতবর্ষ থেকে বাংলার বুকে আসবে যে গোটা আকাশ হেলিকপ্টারে ছেয়ে থাকবে৷ এইভাবে কারপেট বম্বিং মানুষ কোনদিনও দেখিনি। এতেই রীতিমত আতঙ্কিত তৃণমূল।’

আরও পড়ুন : বিজেপির রথযাত্রার পালটা, খোল-করতাল বিলি শুরু অনুব্রতর

রাহুল সিনহার দাবি ‘আগামী কিছুদিনের মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী ব্রিগেড সমাবেশ করবেন। ছ মাস আগে থেকেই তার ছবি দেওয়া হোর্ডিং রাজ্য জুড়ে লাগানো হয়েছে। গোটা রাজ্যে ভুতের নৃত্য চলছে। এখন ব্রিগেডে নিজের উপর ভরসা নেই, তাই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নেতাদের জড়ো করছে। এভাবে বিজেপিকে আটকানো যাবে না।’

এদিন রাহুল সিনহা মালদার পারদেনাপুরে ও এনটিপিসি মোড়ে দুটি পৃথক সভা করেন। উপস্থিত ছিলেন বিজেপির জেলার সভাপতি সঞ্জীব মিশ্র ছাড়াও জেলা নেতৃত্ব৷

---- -----