মেসিদের ব্যর্থতায় চোখে জল মারাদোনার

নিজনি নভগোরড: তিনি বরাবরই আবেগপ্রবণ৷ খেলোয়াড় হিসাবে দেশের জার্সির প্রতি তাঁর আবেগ সর্বজনবিদিত৷ জাতীয় কোচ হিসাবেও কিংবদন্তি দিয়েগো মারাদোনার স্বতঃস্ফূর্ত ভাবাবেগের প্রমাণ পেয়েছে আর্জেন্তিনার ডাগআউট৷ এবার গ্যালারিতে দর্শক হিসাবে মেসিদের খেলা দেখতে এসেও আবেগে নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারলেন না ৮৬ বিশ্বকাপের নায়ক৷ ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে আর্জেন্তিনার ০-৩ গোলে হার দেখে কেঁদে ফেললেন মারাদোনা৷ ম্যাচের পর চোখের জলেই স্টেডিয়াম ছাড়েন দিয়েগো৷

রাশিয়া বিশ্বকাপে আর্জেন্তিনাকে নিয়ে আশাবাদী ছিলেন না মারাদোনা৷ টুর্নামেন্ট শুরুর আগে তিনি জাতীয় দলের প্রথম রাউন্ডের বাধা টপকানো নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছিলেন৷ সেদিক থেকে ক্রোয়েশিয়ার কাছে আর্জেন্তনার হার তাঁর কাছে এমন কিছু অপ্রত্যাশিত নয়৷ তবু চোখের সামনে মেসিদের এমন বিপর্যয় সহ্য করতে পারেননি দিয়েগো৷ স্বাভাবিকভাবেই ম্যাচের শেষে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি৷

শুরুটা অবশ্য অন্যরকম ছিল৷ ম্যাচ শুরুর আগেই ভিভিআইপি বক্সে চলে এসেছিলেন মারাদোনা৷ হাতে ছিল মেসি লেখা দশ নম্বর টি-শার্ট৷ স্বভাবসুলভ উদ্দীপণা ছিল ফুটবল ঈশ্বরের শরীরি ভাষায়৷ ম্যাচে যতবার সংঘবদ্ধ আক্রমণে উঠেছে আর্জেন্তিনা, ততবার উৎসুক দিয়েগো উত্তেজনায় চেয়ার ছেড়ে উঠে পড়েছেন৷ কখনও অনুরাগীদের দিকে ছুঁড়ে দিয়েছেন সঙ্গে নিয়ে আসা টি-শার্ট৷ আবার আর্জেন্তিনার এক একটা গোল হজম করার পর হতাশায় মুখ ঢাকতে দেখা গিয়েছে তাঁকে৷

- Advertisement -

এসেছিলেন দলের জয় দেখতে৷ মেসিদের সমর্থনে গলা ফাটাতে৷ দলকে উদ্দীপ্ত করতে সারাক্ষণ গ্যালারিতে লাফ-ঝাঁপ করতে দেখা যায় মারাদোনাকে৷ শেষে পরিচিত ফিস্ট-পাম্পের ‘হ্যান্ড অফ গড’এ চোখ মুছতে মুছতে মাঠ ছাড়েন তিনি৷ নাইজেরিয়ার বিরুদ্ধে আর্জেন্তিনার গ্রুপের শেষ ম্যাচ মাঠে আসবেন কি না, তা এখনই বলা মুশকিল৷ তবে ক্রোয়েশিয়া ম্যাচে মারাদোনাই ছিলেন আর্জেন্তিনার এক নম্বর সমর্থক৷

Advertisement ---
---
-----