জেলার হোমের ব্যবস্থাপনা নিয়ে বৈঠক কোচবিহারে

স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: জেলার বিভিন্ন হোমগুলির কি অবস্থা, কেমন ভাবে চলছে হোমগুলি, হোমে থাকা আবাসিকদের দেখভাল বা যত্ন বা সরকারি নিয়ম মেনে তারা সব রকমের সুবিধা পাচ্ছে কিনা৷ একাধিক এই প্রশ্নকে সামনে রেখেই আগামী ৪ জুলাই পূর্ব বর্ধমান জেলার বেসরকারি ৬ টি এবং সরকারি একটি হোমের কর্তৃপক্ষদের নিয়ে বৈঠক হতে চলেছে পূর্ব বর্ধমানে।

প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্তমানে পূর্ব বর্ধমান জেলায় ৬ টি বেসরকারি হোম রয়েছে৷ এবং একটি মেয়েদের সরকারি হোম রয়েছে। অনেক সময়ই এই সমস্ত হোমের আবাসিকদের উপর যত্নবান না হওয়ার অভিযোগ ওঠে। তাই হোমগুলির হালহকিকত খতিয়ে দেখতেই এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, এই বৈঠকে সরকারি যে হোম সংক্রান্ত নিয়ম ও আইন রয়েছে সেগুলিকেও তুলে ধরা হবে। এই প্রসঙ্গে পূর্ব বর্ধমান জেলা সমাজ কল্যাণ আধিকারিক প্রশান্ত রায় জানিয়েছেন, ৪ জুলাই মোট ৭টি হোমের কর্তৃপক্ষদের ডাকা হয়েছে। তাঁরা তাঁদের নিয়ে আলোচনা করবেন।

উল্লেখ্য, পূর্ব বর্ধমান জেলায় যে হোমগুলি রয়েছে সেখানে থাকা আবাসিকদের বাড়ির পরিচয় জানা এবং তাদের বাড়িতেই ফেরত পাঠানোর জন্য উদ্যোগ জারি রয়েছে জেলা প্রশাসনের। মঙ্গলবার বর্ধমান সংলগ্ন কাটোয়ার আনন্দ নিকেতন হোম থেকে এক যুবতীকে বাড়িও পাঠিয়ে দেওয়া হয়। জানা গিয়েছে, ২০১৫ সালে কাটোয়া ষ্টেশন থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন এক যুবতীকে উদ্ধার করে কাটোয়ার আনন্দ নিকেতন হোমে তাঁকে পাঠানো হয়।

- Advertisement -

ওই হোমেই গত তিন বছর ধরে তাঁর চিকিত্সা চলে। সম্প্রতি সুস্থ হওয়ার পর তাঁর কাছ থেকে বাড়ির ঠিকানা খুঁজেও পাওয়া যায়। অবশেষে তিন বছর পর মঙ্গলবার তাঁকে তাঁর বাড়ির লোকজনের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রায় তিন বছর আগে নৈহাটি এলাকায় একটি মেলা দেখতে এসে সে হারিয়ে যায়। পরে কাটোয়া ষ্টেশন থেকে তাঁকে উদ্ধার করা হয়।

Advertisement
---