সমাজকে তুড়ি মেরে মঞ্চ-আদালতে সায়ন্তনীই ‘অর্ধনারীশ্বর’

সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: তিনি মঞ্চেও আছেন, আদালতেও। আইনজীবী হয়ে লড়ছেন  সাদা কালো কাপড়ে। নৃত্য শৈলীতে পরিচয় দিচ্ছেন শিল্পী প্রতিভারও। তিনি মেঘ সায়ন্তনী। সমাজের চোখে চোখ রেখে এভাবেই চমক দিচ্ছেন রুপান্তরকামী।

সায়ন্তন দাস, বছর ছয়েক আগেও এটাই ছিল সোনারপুরের নৃত্যশিল্পী তথা আইনজীবীর পরিচয়। এখন তিনিই মেঘ সায়ন্তনী। বদলেছে নাম। বদল হয়েছে লিঙ্গে। রূপান্তরিত হয়েছেন পুরুষ থেকে মহিলায়। এসেছে অনেক বাধা। সব সমস্যাকে দূরে সরিয়ে মেঘ এগিয়ে গিয়েছেন। একদিকে যেমন খ্যাতি লাভ করেছে মেঘ সায়ন্তনীর ড্যান্স ট্রুপ ‘রুদ্র পলাশ’। অন্যদিকে তিনিই আইনি পেশায় খ্যাতি অর্জন করেছেন ভারতের প্রথম রুপান্তরকামী হিসাবে মামলা জিতে।

যাত্রা শুরু হয়েছিল নৃত্যকে সামনে রেখে। তখন তিনি সায়ন্তন। মেঘ সায়ন্তনী বলেন, “নাচ আমার ভালোবাসা। ছোটবেলা থেকেই আমি নাচ শিখছি। আমার মা আমার অনুপ্রেরণা। আমি নিজেও বুঝতে পারতাম আমার ভিতরের মানুষটা একটা ছেলের মতো আচরণ করছে না। কিন্তু খারাপ লাগত যখন আমাকে দেখলেই ব্যঙ্গ করা হত। স্কুল সবাই আমাকে ব্যঙ্গ করে গিয়েছে।” তবে নাচের প্রতি ভালোবাসাটা চলে যায়নি। পড়ে স্কুলের গণ্ডী পেরিয়ে হাজরা ল কলেজ থেকে পড়াশোনা শুরু করেন আইন নিয়ে। ফার্স্ট ক্লাস পেয়ে ‘আলিপুর জাজেস কোর্ট’ থেকে প্র্যাকটিস শুরু করেন ২০১২ সাল থেকে। এখানেও ব্যাঙ্গের সম্মুখীন হতে হয় তাঁকে। এরপরেই তিনি লিঙ্গ পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত নেন।

- Advertisement -

সায়ন্তনী বলেন, “আমার রূপান্তরের সিদ্ধান্ত বাড়ি থেকেও মেনে নেয় নি। সামাজিক সমস্যা থেকেই বাড়িতে সমস্যা তৈরি হয়েছিল। কিন্তু আমি থেমে থাকিনি। কোর্টে যাওয়া বন্ধ করি। জোড় দেওয়া শুরু করি নাচের উপর।” ২০১৪ সালে শুরু হয় সায়ন্তনীর ড্যান্স ট্রুপ ‘রুদ্র পলাশ’। ট্রুপে ভরতনাট্যম, কুচিপুরি ও সৃজনী নৃত্য শেখানো শুরু করেন রুপান্তরকামীদের নিয়েই। সায়ন্তনী বলেন, “রুদ্র পলাশের মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে শিব ও সরস্বতীর নাম অর্থাৎ অর্ধনারীশ্বর।”

রুদ্র পলাশের জন্মের সঙ্গেই ‘সময়’ বদলাতে শুরু করে সায়ন্তনীর। দেশের বিভিন্ন রাজ্য থেকে নাচের জন্য আবেদন আসতে থাকে। ২০১৭ সালে ফের আদালতে ফেরেন তিনি। বেশকিছু আইনজীবী রূপান্তরকামীর বিরুদ্ধে মামলা লড়বেন না বলেন। থেমে থাকেন নি সায়ন্তনী। ২০১৮ সালে বান্ধবীর বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা জেতেন। এর সঙ্গেই ভারতের প্রথম রূপান্তরকামী হিসাবে আইনি লড়াই জেতার নজির গড়েন।

আইনি পেশাকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি নিজের ড্যান্স ট্রুপকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন মেঘ সায়ন্তনীর। মধ্যেই মহাভারতের নারী চরিত্রদের নিয়ে একটি নৃত্য পরিবেশনা করবেন। স্বপ্ন দেশের বাইরেও খ্যাতি লাভ করবে তাঁর নাচের দল। আশা রূপান্তরকামীদের নিয়ে সমাজের কালো মেঘ কাটবে।

Advertisement
---