নয়াদিল্লি : দেশে তছরূপের দায়ে অভিযুক্ত৷ আর বিদেশে বহাল তবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছে পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের লক্ষ কোটি টাকার প্রতারণার অন্যতম কর্ণধার মেহুল চোকসি৷
হীরে ব্যবসায়ী চোকসি ও তার ভাগ্নে নীরব মোদী নাকি এখন অ্যান্টিগুয়াতে৷ সেখানে স্থানীয় পাসপোর্ট নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন আরামে৷ এবং এই স্থানীয় পাসপোর্ট বানিয়েই বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন তাঁরা৷ সঙ্গে রয়েছে তাদের পরিবারও৷

গত মাসেই কেন্দ্রের তদন্তকারী সংস্থা ইডি মুম্বই আদালতে জানিয়েছিল পলাতক এই ব্যবসায়ীদের থেকে ৩৫০০ কোটি টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে৷ এই ব্যবসায়ীদের পলাতক ঘোষণা করারও আরজি জানায় এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট৷

Advertisement

তবে সম্প্রতি গীতাঞ্জলী জেমসের কর্ণধার আজব দাবি করেন৷ তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা জামিন অযোগ্য গ্রেফতারি পরোয়ানা খারিজ করতে হবে বলে দাবি করেন তিনি৷ অবশ্য এর পিছনে যুক্তিও দেখান মেহুল৷ তার দাবি দেশে ক্রমশ বাড়ছে গণপিটুনির ঘটনা৷ তার আশঙ্কা, দেশে ফিরলে তাকেও সেই পরিস্থিতির শিকার হতে হবে৷ গত এপ্রিল ও মে মাসে তাঁর বিরুদ্ধে জারি করা ২টি জামিন অযোগ্য গ্রেফতারি পরোয়ানা খারিজের আরজি জানান তিনি৷

নিজের আবেদনে মেহুল চোকসি বলেন শুধু তার জীবনই সংশয়ের মুখে তা নয়, প্রাণ সংশয় রয়েছে প্রাক্তন সহকর্মীদেরও৷ এমনকী দেশে ফিরলে যে জেলে তাকে রাখা হবে, সেখানকার বন্দিদের হাতেও তার প্রাণ সংশয় হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি৷ তিনি তার আবেদন পত্রে বলেছেন বহু জায়গা থেকে তাঁকে হুমকি দেওয়া হচ্ছে৷ আর তাই তিনি এখন কোথায় রয়েছেন তা জানাননি তিনি৷

কারা কারা তাকে হুমকি দিচ্ছে, তার বিস্তারিত বিবরণও দিয়েছেন মেহুল৷ এরকম নাকি পাঁচটি গোষ্ঠী রয়েছে, যারা তাকে নাকি ক্রমাগত হুমকি দিচ্ছে৷

এদিকে, ১১ হাজার ৪০০ কোটির টাকার জালিয়াতিতে অভিযুক্ত হীরে ব্যবসায়ী মেহুল চোকসি এক ই-মেল বার্তায় সাফ জানিয়ে দেন এই মুহূর্তে ঋণ শোধ করার মতো পরিস্থিতি তার নেই৷ একই সঙ্গে তদন্তকারী সংস্থার বিরুদ্ধে একপেশে তদন্ত করার অভিযোগ তুলে ছিলেন তিনি৷ আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি করার জন্য তোপ দেগেছেন মিডিয়া ও রাজনৈতিক নেতাদেরও৷

এছাড়া এক ই-মেলে বার্তায় তিনি আরও জানিয়ে ছিলেন, তদন্তকারী সংস্থা কোম্পানির একাধিক ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বাজেয়াপ্ত করে দিয়েছে৷ কোম্পানির অন্যান্য সম্পত্তিও বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে৷ এই সময়ে ঋণ শোধ করার মতো পরিস্থিতি নেই৷

----
--