সেন্ট পিটার্সবার্গ: বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের প্রথম দুটি ম্যাচে গোল পাননি মেসি৷ দুটি ম্যাচেই জয়ের মুখ দেখেনি আর্জেন্তিনা৷ ‘ডি’ গ্রুপে ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে লজ্জার ৩-০ হার মেনে নিয়েছিল নীল সাদা-ব্রিগেড৷ পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছেছিল যে ২০০২-এর পর আবার গ্রুপ লিগ থেকে বিশ্বকাপ পর্ব শেষ করে বিদায় নিতে চলেছিল আর্জেন্তিনা৷ নাইজেরিয়ার বিরুদ্ধে গ্রুপের শেষ ম্যাচে প্রথমার্ধের ১৪ মিনিটে একটি অনবদ্য গোলে দলকে এগিয়ে দেন মেসি৷ যে গোলটি ২০১৮ বিশ্বকাপের ১০০ নম্বর গোল ছিল৷

ম্যাচের শুরুতেই আর্জেন্তিনাকে এগিয়ে দেন মেসি৷ ১৪ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে এভার ব্যানেগার উঁচু করে বাড়ানো বল ঊরু দিয়ে নামিয়ে সামনে নিয়ে ডান পায়ের কোনাকুনি শটে জালে পাঠান বার্সেলোনার এই ফরোয়ার্ড৷ বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে পেনাল্টি মিস এবং দলকে জেতাতে না পারার জন্য ইতিমধ্যে মেসির অবসরের দাবিও উঠে গিয়েছিল আর্জেন্তাইন সমর্থকদের মধ্যে৷ কিন্তু এল এম-টেন যে সেরা তা আবারও প্রমাণ করলেন নিজের খেলায়৷ কিংবদন্তিরা সবসময় তাঁদের কাজ দিয়ে ইতিহাস তৈরি করেন৷ মেসির ক্ষেত্রেও তার অন্যথা হল না৷ ২০১৮ বিশ্বকাপের ১০০ নম্বর গোলটি এল মেসির পা থেকেই৷

এর আগে ২০১৪ বিশ্বকাপের শততম গোলটি এসেছিল ব্রাজিল ফুটবলের তারকা ফরোয়ার্ড নেইমারের কাছ থেকে৷ ২০১০ ফুটবল বিশ্বকাপের শততম গোল করার গৌরব অর্জন করেছিলেন স্পেনের মাঝমাঠের কারিগর ইনিয়েস্তা৷ ‘ডি’ গ্রুপের দুটো ম্যাচ শেষে ২০১৮ বিশ্বকাপে এ পর্যন্ত ১০৫টি গোল হয়েছে৷ নাইজেরিয়াকে মঙ্গলবার ‘ডি’ গ্রুপের ম্যাচে ২-১ গোলে হারানোর পর লিও বলেন, ‘আমরা অনেক ভুগেছি৷ খুব কঠিন পরিস্থিতি ছিল৷ আমাদের সবার জন্য এটা অনেক বড় স্বস্তির৷ এতটা সমস্যায় পড়তে হতে পারে তা আমরা ভাবিনি৷’

----
--