ইউজিসি-র পরিবর্তে নতুন উচ্চ শিক্ষা কমিশনের প্রস্তাব কেন্দ্রের

নয়াদিল্লি: নতুন আইনে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) বদলে নতুন উচ্চ শিক্ষা কমিশন আনতে চাইছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ বুধবার এই নতুন আইনের খসড়া প্রস্তাব করে অংশীদারদের কাছ থেকে পরামর্শ চেয়েছে কেন্দ্র৷

এই নতুন আইনটি সম্ভবত ‘বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন আইন, ১৯৫৬’ কে বাতিল করে দেবে৷ বুধবার নতুন আইনটির খসড়া ঘোষণা করে অংশীদারদেরকে সুপারিশ পাঠানোর আবেদন করেছেন মানবসম্পদ উন্নয়ণ মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর৷ তাঁর ঘোষণা অনুযায়ী, ২০১৮ সালের ৭ জুলাই সুপারিশ পাঠানোর শেষ দিন৷ একটি টুইটে প্রকাশ জাভড়েকর বলেন, ‘‘সকল শিক্ষাবিদ, অংশীদার এবং অন্যান্যদের কাছে আমার আবেদন, তাঁরা যেন তাঁদের মন্তব্য ও পরামর্শ ২০১৮ সালের ৭ জুলাই ৫ টার মধ্যে reformofugc@gmail.com-এ মেইল করে দেন৷’’

কেন্দ্রীয় সরকার উচ্চ শিক্ষার উন্নয়ণ এবং শিক্ষা ব্যবস্থার সামগ্রিক উন্নয়ণে সাহায্য করার জন্য উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিকে আরো স্বায়ত্তশাসন প্রদান করে এমন নিয়ন্ত্রক ব্যবস্থার সংস্কারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল৷ সেই প্রতিশ্রুতির একটি প্রচেষ্টা হল এই খসড়া আইনটি৷ ইতিমধ্যেই ‘‘হায়ার এডুকেশন কমিশন অফ ইন্ডিয়া অ্যাক্ট, ২০১৮’’ নামের এই খসড়াটি ওয়েবসাইটে আপলোড করা হয়ে গিয়েছে। ১৯৫৬ সালের ইউজিসি আইনের পরিবর্তে এই নতুন খসড়া আইনের প্রস্তাব গৃহীত হলে, উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে ‘ইনস্পেকশন রাজের অবসান’ ঘটবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্র।

- Advertisement -

প্রকাশ জাভড়েকর বলেন, ‘‘কয়েকটি বিষয়ের উপর নির্ভর করে নিয়ন্ত্রক ব্যবস্থার পরিবর্তন করা হয়েছে৷ তা হল, ন্যূনতম সরকার ও সর্বোচ্চ শাসন, মঞ্জুরী কাজকর্মের পৃথকীকরণ, ইন্সপেক্সন রাজের অবসান, একাডেমিক গুণমানের উপর নজর দেওয়া এবং প্রয়োগ করার ক্ষমতা৷’’ প্রস্তাবিত এই নতুন কমিশনকে মঞ্জুরীর ক্ষমতা দেওয়া হচ্ছে না৷ মঞ্জুরীর দায়িত্ব দেওয়া হবে মন্ত্রককে৷ ‘‘হায়ার এডুকেশন কমিশন অফ ইন্ডিয়া অ্যাক্ট, ২০১৮’’ নামের এই নতুন খসড়া আইনের প্রস্তাব গৃহীত হলে তা পার্লামেন্টের যে কোনও আইনের অধীনে প্রতিষ্ঠিত উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির ক্ষেত্রে কার্যকরী হবে৷ ব্যতিক্রম, কেন্দ্রীয় বা রাজ্য সরকার যে সব প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় গুরুত্ব দিচ্ছে বলে ঘোষণা করবে৷

Advertisement
----
-----