মহিলাকে জুতোর মালা পরিয়ে লাঞ্ছনায় অভিযুক্ত তৃণমূল

স্টাফ রিপোর্টার, মেদিনীপুর: ছাপ্পা দেওয়ার প্রতিবাদ করায় দলীয় নেত্রীকেই প্রকাশ্যে লাঞ্ছনা করার ছবি ঘিরে অস্বস্তিতে তৃণমূল কংগ্রেস৷ সোশ্যাল সাইটে সেই ছবি ভাইরাল হয়েছে৷ ঘটনায় প্রকাশ্যে এসেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় শাসক দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব৷

পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিন কঙ্কাবতী ৪ নম্বর অঞ্চলের বাগডুবির বুথে ভোটে ছাপ্পা দেওয়ার প্রতিবাদ করেন তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী গৃহবধূ কবিতা দাস৷ তারপরেই তাঁর গলায় জুতোর মালা ঝুলিয়ে, কান ধরে ওঠবোস করানো হয়৷ এই ঘটনায় অভিযুক্ত স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী সঞ্জিত কুইলা।

কবিতা দাস ও তাঁর স্বামী গোপাল দাস তৃণমূল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সদস্য৷ কিন্তু ওই আসন মহিলা সংরক্ষিত হওয়ায় তৃণমূলের তরফে অনিমা দাসকে প্রার্থী করা হয়৷ অভিযোগ, এর জেরে শুরু হয় গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। নির্বাচনের দিনে অনিমা বিরোধী গোষ্ঠী কবিতা দাস সরাসরি ছাপ্পা দেওয়া রুখতে গেলে ধুন্ধুমার বেধে যায়৷ তারপরেই শুরু হয় কবিতাকে ঘিরে লাঞ্ছনা৷ দল বিরোধী কাজের জন্য তার বিচারে জুতোর মালা পরিয়ে গ্রাম ঘোরানো হয়৷ শেষে পার্টি অফিসের সামনে কান ঘরে ওঠবোস করানো হয় তাঁকে। এই রকম ঘটনা মাওবাদী সময়ে সিপিএমের নেতা-কর্মীদের করত জনসাধারণ কমিটি ও মাওবাদীরা বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা৷

- Advertisement -

ঘটনার হাজার খানেক প্রত্যক্ষদর্শী থাকলেও ভয়ে সব চুপ হয়ে গিয়েছেন। শনিবার রাতেই অভিযুক্তরা এলাকা ছেড়ে গা ঢাকা দেয় বলে জানা যায়। ঘটনার পর থেকে বাম-কংগ্রেস সহ বিরোধী রাজনৈতিক মহলে তুমুল সমালোচনা শুরু হয়েছে৷ রবিবার দুপুরে ওই নির্যাতিতা মহিলার সঙ্গে দেখা করলেন বিজেপির জেলা প্রতিনিধি দল। ছিলেন জেলা সভাপতি সভাপতি শমিত কুমার দাস৷ দোষীদের গ্রেফতারের পাশাপাশি কঠোর শাস্তির দাবি তোলেন তাঁরা৷

Advertisement
---