কলকাতাতেই আছে মিনি-পাকিস্তান: ফিরহাদ

কলকাতা: ‘আমার সঙ্গে আসুন। আপনাকে নিয়ে যাই কলকাতার মিনি পাকিস্তানে।’ পুরমন্ত্রী তথা তৃণমূলের প্রথম সারির নেতা ফিরহাদ হাকিম এই ভাষাতেই স্বাগত জানিয়েছেন পাক সংবাদপত্র ‘ডন নিউজ’-এর সাংবাদিককে। নিজের বিধানসভা এলাকা গার্ডেনরিচ-কে এভাবেই বর্ণনা করেছেন মন্ত্রী। আর এই সংবাদ প্রকাশ্যে আসতেই তৈরি হয়েছে বিতর্ক।

আরও পড়ুন: ১.পাকিস্তানে যাওয়ার প্রয়োজন বোধ করলেন না পুতিন

৩০ এপ্রিল পঞ্চম দফার নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট প্রার্থীর সঙ্গে ভাগ্যনির্ধারণ হবে ববি হাকিমেরও। এমনিতে নারদের স্টিং অপারেশনে ঘুষ কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়ায় চাপে রয়েছেন ববি। এবার কলকাতাকে ‘পাকিস্তান’ সম্বোধন, তাঁর জন্য নয়া বিপদ ডেকে আনবে কিনা, সেটাই প্রশ্ন। খোদ কলকাতার একটা অংশকে ভারতের শত্রুদেশের নামে সম্বোধন করা যে খুব একটা সুখকর নয়, তা বেশ স্পষ্ট। সোশ্যাল মিডিয়া দেখেই সেটা বেশ বোঝা যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই অনেকে এই খবর ফেসবুকে ‘শেয়ার’ করে ধিক্কার জানাচ্ছেন ববি হাকিমকে।

- Advertisement -

আরও পড়ুন: .অবশেষে ভারত-পাক সীমান্তে বসল ‘লেজার ওয়াল’

আরও পড়ুন: জঙ্গি সংগঠনের পরিচালনায় পাকিস্তানে তৈরি হচ্ছে বিশাল মাদ্রাসা

‘ডন নিউজ’-এর সাংবাদিক মালেহা হামিদ সিদ্দিকি তাঁর সঙ্গে ঘুরে দেখেন তাঁর প্রচার। সেই বর্ণনাই প্রকাশিত হয়েছে পাক সংবাদমাধ্যমে। সাংবাদিক উল্লেখ করেছেন, ওই এলাকা ঘুরে তাঁর ফিরহাদের কথাই সত্যি বলে মনে হয়েছে। কারণ, ওই এলাকা জুড়ে সব জায়গায় ফিরহাদের সমর্থনে রয়েছে উর্দু পোস্টার। যেখানে লেখা রয়েছে “Firhad Hakim (Bobby) ko kaseer votoun say kaamyaab karain”, “Urs Ghareeb Nawaz: Aap tamaam hazraat say guzarish hai is urs muqaddas main hazir ho kar hazrat Khwaja Gharib Nawaz kay fuyooz say malaan houn”, “Ishtihaar lagana mana hai”. এই চেহারা তাঁকে আদতেই পকিস্তানের কথা মনে করিয়ে দিয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন তিনি। এছাড়া ওই সাংবাদিক যখন খাতা-কলম হাতে ঘামে বিধ্বস্ত অবস্থায় ইতস্তত ঘুরে বেড়াচ্ছেন, তখন আশেপাশের লোকজন তাঁর পরিচয় জানতে চান। আর তিনি পাকিস্তান থেকে এসেছেন বলায় বাসিন্দারা একগাল হাসি দিয়ে অভ্যর্থনা জানিয়েছেন বলেও উল্লেখ করেছেন  মালেহা হামিদ সিদ্দিকি।

আরও পড়ুন: .শুধুই সন্ত্রাস নিয়ে আলোচনা চায় দিল্লি: পাকিস্তান

স্বভাবতই বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছে পদ্ম শিবির। এদিন শিলিগুড়িতে বিজেপি নেতা সিদ্ধার্থনাথ সিং সাংবাদিক সম্মেলনে ডন পত্রিকায় প্রকাশিত খবরটি দেখান সাংবাদিকদের। তাঁর কথায়,”ফিরহাদ হাকিমের মতো একজন বিধায়ক ও রাজ্যের মন্ত্রীর মতো সাংবিধানিক পদে থেকে কিভাবে এই মন্তব্য করলেন? এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। ভোটারদের তৃণমূলকে বয়কট করা উচিত।” একইসঙ্গে নারদ কাণ্ডে এবং বিবেকানন্দ উড়ালপুল ভেঙে পড়ায় ফিরহাদ তথা ববি হাকিমের নাম জড়ানো নিয়েও তৃণমূলকে আক্রমণ করেছেন ভারতীয় জনতা পার্টির জাতীয় সেক্রেটারি সিদ্ধার্থনাথ সিং।

আরও পড়ুন: কোহিনুরেও দখলদারী পাকিস্তানের!

‘ডন নিউজ’-এ প্রকাশিত প্রতিবেদন পড়তে ক্লিক করুন-

Advertisement
---