বেঙ্গালুরু: বাঘ মোদীকে হারাতে কাক, হনুমান, শিয়াল সহ অন্যান্য বিরোধীরা জোট বেধেছে। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিরোধী জোটকে এই ভাষাতেই কটাক্ষ করলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনন্ত কুমার হেগড়ে।

২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত দেশের সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদীকে পরাস্ত করতে আসরে নেমেছে সব বিরোধী রাজনৈতিক দল। লক্ষ্য সফল করতে একদা শত্রুদের সঙ্গেও হাত মিলিয়েছে অনেকে। উত্তর প্রদেশে সপা-বিএসপি একজোট হয়ে নজির গড়ে ফেলেছে। নির্বাচনের আগে কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি থাকলেও বিজেপি-কে রুখতে কর্ণাটকে জোট করেছে কংগ্রেস-জেডি(এস)।

জাতীয় রাজনীতির এই জটিল পরিস্থিতিকে কটাক্ষ করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনন্ত কুমার হেগড়ে। মোদীর মন্ত্রীসভার এই সদস্য বলেছেন, “একদিকে কাক, হনুমান, শিয়াল এবং অন্যান্যরা একজোট হয়েছে, অন্যদিকে আমাদের একজন বাঘ রয়েছে।”

যদিও কোনও ব্যক্তি বা রাজনৈতিক দলের নাম বলেননি মন্ত্রী হেগড়ে। বৃহস্পতিবার কারোয়ার এলাকার একটি প্রকাশ্য জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে ওই মন্তব্য করেন মোদীর মন্ত্রী। একই সঙ্গে শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বাঘের সমর্থনেই ভোট দেবেন।”

অনন্ত কুমার হেগড়ে

দেশ জুড়ে গেরুয়া ঝড় তোলার যে লক্ষ্য মোদী-অমিত শাহ নিয়েছিলেন তা দ্রাবিড় ভূমি কর্ণাটকে ধাক্কা খেয়েছে। ওই রাজ্যেই প্রথম যুযুধান দুই রাজনৈতিক দল জোট সরকার গঠন করেছে বিজেপি-কে রুখতে। সেই সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন বিজেপি বিরোধী প্রায় সকল রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতৃত্ব।

কর্ণাটকের উত্তর কন্নার লোকসভা কেন্দ্র থেকে জিতে মন্ত্রী অনন্ত কুমার হেগড়ে। তাঁর রাজ্য থেকেই জোটের যে যাত্রা শুরু হয়েছে তা রুখতে কোমড় বেধে নেমে পড়েছেন এই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। ওই জনসভা থেকে ভারতের জাতীয় কংগ্রেসকেও আক্রমণ করেছেন তিনি। শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “আমরা এখন প্লাস্টিকের চেয়ারে বসে রয়েছি, তাই তো? কংগ্রেস ৭০ বছর শাসন করেছে বলে আমাদের প্লাস্টিকের চেয়ারে বসতে হচ্ছে। কংগ্রেস শাসনে না থাকলে আপনারা রুপোর চেয়ারে বসতেন।”

----
--