স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: নিজের উপস্থিত বুদ্ধির জোরে পাচারকারীদের হাত থেকে রক্ষা পেল এক কিশোরী। শুধু তাই নয়, সেই ঘটনায় চার পাচারকারীকে গ্রেফতার করাও সম্ভব হয়েছে ওই কিশোরীর জন্য। ধৃতদের মধ্যে ছিল এক মহিলাও। ধৃতেরা হলেন শরদ গুপ্তা (৫৫), প্রদীপ কুমার সিং (৩২), দীনেশ গুপ্তা (২৬)। এদের প্রত্যেকের বাড়ি বেনারসে। পাশাপাশি, ধৃত মহিলার নাম সুস্মিতা রায় (১৯) ওরফে মাম্পি৷ তিনি দার্জিলিংয়ের বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে৷

গোলাবাড়ি পুলিশ সূত্রে খবর, অভিযোগকারী কিশোরীর বয়স ১৭ বছরের কাছাকাছি। দার্জিলিংয়ের চম্পাসুরির বাসিন্দা সে। প্রায় দু’মাস আগে এক মহিলার সঙ্গে তার পরিচয় হয়। তারা ওই কিশোরীকে কলকাতায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলে। প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে কিশোরীর পরিবারের পক্ষ থেকে মেয়েকে তাদের সঙ্গে পাঠাতে রাজি হয়ে যায়। সেই মতো ৩০ আগস্ট মাম্পি এবং রূপম দার্জিলিং থেকে রওনা হয় কলকাতার উদ্দেশ্যে। প্রথমে তাঁরা শিলিগুড়ি আসে। সেখান থেকে ট্রেন ধরে কলকাতার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। পরের দিন সকালে তিনজন শিয়ালদহ স্টেশনে আসেন। সেখান থেকে তাঁরা তিনজন এক বয়স্ক লোকের সহায়তা নিয়ে পৌঁছায় একটি হোটেলে।

Advertisement

পড়ুন:‘শিক্ষারত্ন’ পাচ্ছেন মুড়াজোড় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক

কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে ওঠার পর অভিযোগকারী কিশোরী দেখে সেখান থেকে রূপম নেই। তাঁর খোঁজ নিতে গেলে সদুত্তর দিতে পারেনি কেউই। পুলিশ আরও জানিয়েছেন, ওই দিন রাতে তাঁদের সঙ্গে আসা বয়স্ক লোক এবং অন্য দু’জন হোটেলের যে ঘরে ছিল সেখানে তাঁর সঙ্গে অত্যন্ত খারাপ ব্যবহার করে। এমনকি তাদের হাতে যৌন হেনস্তার শিকার হতে হয় তাকে।
শনিবার ওই তিন ব্যক্তি কিশোরীকে জানায়, সে তাদের কাছে বিক্রি হয়ে গিয়েছে। রূপম তাকে বিক্রি করে দিয়েছে। তাকে এবার বেনারস যেতে হবে। এমনকি কিশোরীকে এই বলেও হুমকি দেওয়া হয় যে যদি তাঁদের কথা অমান্য করা হয় তাহলে তাকে হত্যা করা হবে। ওই দিন সকাল সাড়ে ১১ টা নাগাদ মাম্পি এবং অন্য তিনজন কিশোরীকে নিয়ে আসে হাওড়া স্টেশনে। সেখান থেকে তাদের বেনারসের ট্রেন ধরার কথা ছিল। সেই সময় হাওড়া স্টেশনের সাবওয়ে দিয়ে রেল স্টেশনে যাওয়ার পথে পুলিশ দেখে ওই কিশোরী সেখানে চিৎকার, কান্নাকাটি শুরু করে দেয়। সেখানে লোকজন জড়ো হয়ে যায়। খবর পেয়ে সেখানে আসে আরপিএফের জওয়ানরা।

তাদের সকলের সহায়তায় আটক করা হয় চারজনকে। ধৃত চারজন এবং উদ্ধার হওয়া নাবালিকাকে তুলে দেওয়া হয় গোলাবাড়ি থানার হাতে। জানা গিয়েছে, ওই নাবালিকাকে পতিতাবৃত্তির জন্য বেনারসে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। অভিযুক্তরা আরও জানিয়েছে, এর জন্য রূপম এবং মাম্পিকে তারা ২০ হাজার টাকা দিয়েছিল। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পকসো আইনের ৮ ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ।

----
--