স্টাফ রিপোর্টার, ফারাক্কা: প্রতিবেশীর যৌন লালসার শিকার হতে হল নাবালিকাকে। ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদ জেলার ফারাক্কার মহেশপুর গ্রামে। ৪০ বছর বয়সী অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম তাজামুল সেখ।

আরও পড়ুন- দেহব্যবসার জন্যে বাড়ি ছাড়লেন এই অভিনেতা!

নির্যাতিতার অভিযোগ, বুধবার রাতের দিকে বাড়ির অদূরেই এক কাকার দোকানে সে টিভি দেখতে যাচ্ছিল। এমন সময় পড়শি তাজামুল সেখ তাকে স্থানীয় একটি ভাঙা ঘরে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন চালায়। সমগ্র বিষয়টি চেপে যাওয়ার জন্য তার হাতে ১০টা গুজে দেয় অভিযুক্ত তাজামুল।

আরও পড়ুন- সংখ্যালঘু ছাত্রীদের স্কলারশিপের টাকা বাড়াতে চলেছে কেন্দ্র

দীর্ঘক্ষণ মেয়েকে দেখতে না পেয়ে চিৎকার শুরু করে দেয় ওই নাবালিকার মা। এলাকায় লোকজন জড়ো হতে শুরু করলে ওই নাবালিকাকে ছেড়ে পালিয়ে যায় তাজামুল। এমনই জানিয়েছে নির্যাতিতা নাবালিকা। বাড়িতে ফিরে সমগ্র ঘটনার কথা বিস্তারিত জানায় ওই নাবালিকা। ১৯ তারিখেই ফারাক্কা থানায় তাজামুল সেখের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।

আরও পড়ুন- “মুসলিম নয়, বিজেপি-র আসল শত্রু গোরক্ষকেরা”

ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত তাজামুল সেখ। চার দিন পরেও অভিযুক্ত ব্যক্তি গ্রেফতার না হওয়ায় পুলিশের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ এনেছে নির্যাতিতার পরিবার এবং প্রতিবেশীরা। একই সঙ্গে এই ঘটনার জেরে আতংক ছড়িয়েছে সমগ্র মহেশপুর গ্রামে।

রবিবার নির্যাতিতা নাবালিকার মেডিক্যাল টেস্ট করা হয়। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে যৌন নির্যাতনের শিকার হওয়া নাবালিকা মহেশপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রী।

----
--