শুভায়ণ রায়, কলকাতা: দৈনন্দিন জীবনের ব্যস্ততার জেরে মানুষ হারিয়ে ফেলছে, তাঁর জীবনের সুক্ষ্ম সুক্ষ্ম অনুভূতিগুলি৷ আর এই অনুভূতিগুলো ফিরিয়ে আনতে তাঁরা নিয়ে ফেলছে অনেক রকমের রিস্ক৷ যখন দুটো প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ জীবনে অন্য কোন ভালোলাগার উপকরণ না পেয়ে একে অপরকে ভয় দেখাতে শুরু করে৷ এবং সেটা সত্যিকারের জীবনের ভয়৷

এমনই এক থ্রিলিংয়ের কাহিনী নিয়ে পরিচালক অভিজিৎ চৌধুরি তৈরি করে ফেললেন একটি স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবি যার নাম ‘মিথ্যে’৷ যেখানে গল্পের নায়িকা এক বৃষ্টিভেজা সন্ধ্যেতে তাঁর বয়ফ্রেন্ডের কাছে যাচ্ছে একটি রোম্যান্টিক ডেটে৷ অন্যদিকে মেয়েটির রুমমেট একাধিকবার সাবধান করছে সেখানে না যেতে৷ কিন্তু মেয়েটি কারোর কথা না শুনে হাজির হয় ছেলেটির বাড়িতে৷ সেখান থেকে বদলে যায় গল্পের মোড়৷ একটি বৃষ্টিভেজা রোম্যান্টিক রাত নিমেশে বদলে যায় গা ছমছমে রাতে৷ কিন্তু কেন তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে শর্টফিল্মটি রিলিজের জন্য৷

ছবিতে মূখ্যচরিত্রে অভিনয় করছেন সৌমন বোস এবং পায়েল দেব৷ পায়েল ছোটপর্দার জনপ্রিয় মুখ হলেও সৌমন অভিনয় জগতে একদম নতুন৷ তবে তাঁর অভিনয় দেখলে কিন্তু একফোঁটাও মনে হবে না, তিনি ক্যামেরার সামনে এই প্রথমবার এসেছেন৷ ছবির কাস্টিং নিয়ে পরিচালকের মত, “সৌমন আমার মতো একজন ইনডিপেন্ডেট ফিল্মমেকার৷ ওর অভিনয় দেখে আমরা মুগ্ধ৷ আমরা কেউ ভাবতে পারিনি ও এতটা সাবলীল অভিনয় করবে৷ শ্যুট করার একদিন আগে ওর সঙ্গে কথা বলা প্রায় বন্ধ করে দিয়েছিলাম যাতে ওর মধ্যে সেই ডার্ক সাইডটা উঠে আসে৷ অন্যদিকে পায়েল খুব সুইট টাইপের একটা মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছে৷ এমনিও ও খুব মিষ্টি মেয়ে৷ ওর মধ্যে একটা ইনোসেন্ট টাইপের জিনিস আছে৷ যদিও ওর চরিত্রে একটা ট্যুইস্ট এন্ড টার্ন আছে, যেটা এখন বলা যাবে না৷ ফলে পায়েল ওর চরিত্রের জন্য পারফেক্ট৷”

ছবির গল্প প্রসঙ্গে পরিচালক অভিজিৎ চৌধুরী বলেন, “ছবিটি কিন্তু ভীষনভাবে বাস্তবধর্মী ৷ প্রথমত, হলিউডে যে এখন লিঙ্গ বৈষম্য নিয়ে একটা বিরাট বড় ইস্যু সৃষ্টি হয়েছে যেখানে নামী দামী অভিনেতা, পরিচালকের নাম জড়াচ্ছে৷ সেখানে দেখছি হিচককের মতো পরিচালকেরও নাম জড়িয়েছিল৷ সে যেকোন সিনেমায় কোন দৃশ্যকে পারফেক্টভাবে ফুঁটিয়ে তোলার জন্য তাঁর নায়িকাদের সত্যিকারের ভয় দেখাতো যাতে সে চরিত্রের মধ্যে ঢুকতে পারে৷ বিষয়টি নিয়ে ইদানিং অনেক কথাও হচ্ছে৷

অপরদিকে আবার, আমাদের সমাজে কিছু উচ্চমধ্যবিত্ত শ্রেনীর মানুষ আছেন, যাদের সবরকম চাহিদা পূরণ হয়ে যাচ্ছে টাকার বিনিময়ে৷ ফলে তাঁদের জীবনে কিন্তু একঘেয়েমি চলে আসছে৷ যার জেরে তাঁরা জীবনে বেশকিছু স্পেশ্যাল কাজে থ্রিল খুঁজতে থাকে৷ তখনই তাঁর বিপরীতে যে মানুষটি থাকে তাঁকে থ্রিলিং অনুভব করানোর জন্য বিভিন্ন প্ল্যান করে৷ তো সবকিছু মধ্যে থ্রিল ব্যাপারটা চলে আসছে৷ যে কারনে ‘মিথ্যে’র মুখ্য চরিত্র কিন্তু থ্রিল।”

video link: https://youtu.be/SP_QZ60Le0A

--
----
--