গোরক্ষার স্বার্থে বিধায়ক পদে ইস্তফা দিলেন রাজা সিং

হায়দরাবাদ: গরুদের বাঁচিয়ে রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেই মহান কাজের জন্য পদত্যাগ করলেন বিধায়ক টি রাজা সিং। ভারতীয় জনতা পার্টির এই জনপ্রতিনিধি হায়দরাবাদের গোসামহল কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন।

রবিবার বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন টি রাজা সিং। একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছে দিয়েছেন যে জনপ্রতিনিধির কাজ ছেড়ে এখন থেকে সম্পূর্ণ সময়ের জন্য গোরক্ষায় মন দেবেন তিনি। বিধায়ক পদের সঙ্গে দলীয় পদ থেকেও ইস্তফা দিয়েছেন তেলেঙ্গানার এই বিতর্কিত ব্যক্তি।

আরও পড়ুন- “এনআরসি নিয়ে বিজেপি হিন্দু আর তৃণমূল বাঙালি তাস খেলছে”

- Advertisement -

এদিন সাংবাদিক সম্মেলন করে এই চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন রাজা সিং। জনপ্রতিনিধি হিসেবে গোরক্ষার কাজে নানান প্রতিকূলতা দেখা দিচ্ছিল এবং দলের ভাবমূর্তি কালিমালিপ্ত হচ্ছিল। সেই কারণেই তিনি বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন রাজা। তাঁর কথায়, “চার দিন আগেই আমি দলের রাজ্য সভাপতি ডাঃ কে লক্ষণকে ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দিয়েছি। গোরক্ষার স্বার্থে আমি আমার আন্দোলন চালিয়ে যাব। এর সঙ্গে আমার পার্টিকে কোনোভাবেই জড়াতে চাই না।”

তেলেঙ্গানা বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, বিধায়ক টি রাজা সিং-র ইস্তফাপত্র এখনও বিধানসভায় পাঠানো হয়নি। খুব স্বাভাবিকভাবেই স্পিকার এস মধুসূদনের হাতেও তা পৌঁছায়নি।

আরও পড়ুন- স্বাধীনতা দিবসে প্রত্যেক বাড়িতে তেরঙ্গা ওড়াতে উদ্যোগ বিজেপির

বিভিন্ন সময়ে বহু বেফাঁস মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়েছেন টি রাজা সিং। কাশ্মীরি পুরোহিত প্রসঙ্গ, গোরক্ষা থেকে শুরু করে গণপিটুনি। সব ক্ষেত্রেই রাজা সিং-র মন্তব্য থেকে জন্ম নিয়েছে বিতর্ক। এ দিন সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেছেন, “নিজের হাতে আইন তুলে নেওয়ার আমি বিরোধী। একই সঙ্গে গোহত্যারও আমি ঘোর বিরোধী।” সমগ্র দেশে গোহত্যা বন্ধ না হলে গোরক্ষার নামে তাণ্ডব বন্ধ হবে না বলেও দাবি করেছেন তিনি। এই বিষয়ে আইন আনার দাবিও করেছেন টি রাজা সিং।

সপ্তাহ তিনেক আগেই শোনা গিয়েছিল যে লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী হতে চলেছেন টি রাজা সিং। হায়দরাবাদ কেন্দ্র থেকে এআইএমআইএম প্রধান আসাদুদ্দিন ওয়াইসি-র বিরুদ্ধে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে তাঁকেই উপযুক্ত বলে মনে করছে বিজেপি নেতৃত্ব।

Advertisement ---
---
-----