১০০ গ্রামকে স্বনির্ভর করার গুরুভার বিশ্বভারতীর কাঁধে

স্টাফ রিপোর্টার, বোলপুর: গুরুদেবের শান্তির নীড় শান্তিনিকেতনে এসে গর্বিত আচার্য নরেন্দ্র মোদী৷ বিশ্বভারতীর সমাবর্তন মঞ্চ থেকে সে কথাই জানালেন তিনি৷ মনে করিয়ে দিলেন এখানে তিনি অতিথি নন, আচার্য৷ এই বিশ্বভারতীর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক ‘আত্মার’৷ তাই এই অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকেই ১০০ গ্রামকে স্বনির্ভর করার ব্রত নিলেন প্রধানমন্ত্রী৷

২০২১ সালে বিশ্বভারতী তার ১০০ বছর পূর্ণ করছে৷ সেই ২০২১ সালকে লক্ষ্য করেই ১০০টি গ্রামকে স্বনির্ভর করার ভার তুলে দিলেন বিশ্বভারতীর কাঁধে৷ তিনি বলেন, ‘‘এই ১০০টি গ্রামকে স্বনির্ভর করার দায়িত্ব আপনাদের৷’’

আরও পড়ুন: রোহিঙ্গাদের দেশে ফেরাতে মোদীর কাছে সাহায্যের আর্জি হাসিনার

- Advertisement -

ইতিমধ্যেই বিশ্বভারতী সংলগ্ন প্রায় ৫০টি গ্রামের উন্নয়নকর্মে যুক্ত হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়৷ সে খবর পেয়েছেন আচার্যও৷ এদিনের অনুষ্ঠানমঞ্চ থেকে নরেন্দ্র মোদী বলেন, ‘‘আমি শুনেছি এই খবর৷ আপনাদের থেকে আমার আশা আরও বেড়ে গিয়েছে৷ তাদের কাছেই আশা করা যায় যারা কাজ করে৷’’

এরপরই তিনি বলেন, ‘‘২০২১ সালে এই মহান প্রতিষ্ঠান ১০০ বছর পূর্ণ করবে৷ আপনারা কি এই দু’ তিন বছরের মধ্যে ৫০টি গ্রামের লক্ষ্যকে ১০০ অথবা ২০০ গ্রামে নিয়ে যেতে পারবেন? আপনারা সংকল্প নিন ২০২১ সালের মধ্যে এরকম ১০০টা গ্রাম আমরা দেখতে পাব যেখানে কেবল কানেকশন রয়েছে,গ্যাস কানেকশন, শৌচালয়, মা, সন্তানের টীকাকরণ সম্ভব হবে৷ ডিজিটালি লেনদন করতে শিখবেন ঘরের লোকজন৷’’

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধনে এসে গর্বিত হাসিনা

গ্রামগুলিতে যাতে ভূমিসংরক্ষণ, জলসংরক্ষণ করা যায়৷ কাঠ পোড়ানো বন্ধ করে বায়ু দূষণ রোধ করা যায় সেদিকগুলি খেয়াল রাখার আদেশ দেন আচার্য৷ গোবর্ধন কিংবা স্বচ্ছ ভারতের মতো কেন্দ্রের যে প্রকল্পগুলি রয়েছে সকলে যেন তার যথাযথ সাহায্য নিতে পারেন সেসব কিছুই দেখার ভার এদিন বিশ্বভারতীর হাতে সঁপে দেন নরেন্দ্র মোদী৷

Advertisement ---
-----