ছোটপর্দার গোপন কথা ফাঁস করলেন অভিনেত্রী মোনালিসা

কলকাতা: অভিনেত্রী মোনালিসা পালের সঙ্গে টেলিভিশনের আত্মীক যোগাযোগ রয়েছেন বহুদিন থেকেই৷ কেরিয়ারের প্রথমদিকটায় একটি বেসরকারী টিভি চ্যানেলের সঞ্চালনার ভূমিকায় কাজ করতেন৷ বলা বাহুল্য গানের ওই প্রোগাম থেকেই তিনি জনপ্রিয়তা বেশি পেয়েছিলেন৷ তারপর লম্বা বিরতি৷ স্বপ্নসন্ধানী নামে একটি নাট্যদলে যোগদান করে নিজের অভিনয় ক্ষমতাটা আরও তিক্ষ্ণ করলেন৷ এরপরে ঢুকলেন ধারাবাহিকে৷ বেশ কয়েক বছর সিরিয়াল করছেন৷ বলতে গেলে বর্তমানে সবথেকে এক্সপিরেন্স অল্পবয়সী টেলিঅভিনেত্রীর মধ্যে মোনালিসা অন্যতম৷ কিন্তু যে আশা নিয়ে ছোটপর্দায় এসেছিলেন সেটা কী আদৌ পরিবর্তন ঘটল৷

গতে বাঁধা গল্প নিয়ে প্রায় প্রত্যেকবছরই একের পর এক সিরিয়াল নিয়ে দর্শকদের সামনে পেশ করছেন নির্মাতারা এটা তো সকলেরই জানা৷ কিন্তু এই সিরিয়ালগুলি করতে যে অভিনেতারা বেশ নাজেহাল হয়ে পড়ছেন এটা কিন্তু অনেকেই জানেন না৷ এমনকি একই চরিত্র, একই গল্পতে নিজেদের আটকে ফেলে বেশ অধৈর্য হয়ে উঠছেন ইন্ডাস্ট্রির অনেকেই৷ এই বিষয় অভিনেত্রী মোনালিসা জানান, “ধারাবাহিকের গল্প আরও বাস্তববাদী হওয়া উচিত। যদিও অনেকেরই মতে দর্শকদের চাহিদা এখন এরকমই তাই এমন গল্পই চলছে সব ধারাবাহিকে। কিন্তু আমার বলব একটু রিস্ক নেওয়া কী যায় না? ভালো কনটেন্ট সবাই চাইছে? তাহলে এত ভয় কীসের নিজেকে পরিবর্তন করার?”

আরও পড়ুন: নাগিনে সবাইকে চমকে দিলেন করিশ্মা তান্না

- Advertisement -

পাশাপাশি নায়িকা তাঁদের কাজের চাপ নিয়েও মুখ খোলেন৷ তিনি জানান, ‘‘সকলে এত প্রফেশ্যনাল হয়ে পড়ছে যে সঠিক কোন টাইমিং তৈরী করাই যাচ্ছে না, অমানুষিক চাপ দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে৷ অন্যদিকে আবার কিন্তু টাকাও সকলের খুব প্রয়োজনীয়। টাকার তাগিদেই অনেকে এই চাপটা মেনে নিতে বাধ্য হচ্ছে৷ একটানা ২০ ঘণ্টা, ২৩ ঘণ্টা ধরে সকলে কাজ করছেন । ব্যক্তিগতভাবে আমি নিজেই রাত তিনটেয় প্যাকআপ করে পরেরদিন আবার সাতসকালে শ্যুটিংয়ে যেতে হয়। আর যাঁরা মেন ক্যারেক্টর করছে তাঁদের পরিশ্রমটা আরও অসহনীয়। সবাই নিজের দিক থেকে বেস্ট দিচ্ছে। কারোর কাজেই কমতি নেই৷ কিন্তু এই সময় নিয়ে সমস্যা কোনদিনই মিটছে না। চ্যানেল কর্তৃপক্ষের এই বিষয়টি দেখা উচিত।’’

আরও পড়ুন:  বিয়ের আগে সিং পরিবারে শোকের ছায়া

আপাতত নায়িকা ব্যস্ত তাঁর একাধিক প্রজেক্ট নিয়ে৷ একদিকে যেমন ‘কে আপন কে পর’ ধারাবাহিকের তন্দ্রা তেমনি আবার অন্যদিকে ‘জীবন জ্যোতি’র সংযুক্তা। দুটোতেই একই রকমের নেগেটিভ চরিত্রে দেখা যাচ্ছে তাঁকে৷ যদিও অভিনয় দিক থেকে তিনি নিজের সবটা দিয়েই করেন যার জন্যে প্রশংসাও পাচ্ছেন দর্শকদের থেকে। যদিও ব্যক্তিগতভাবে তিনি চরিত্রে ভিন্নতা খুঁজছেন তাঁর এই বক্তব্য দেখে স্পষ্ট৷

Advertisement ---
---
-----