দশমাসের মেয়ের সঙ্গে মাকেও খুনের অভিযোগ সাগরদিঘিতে

স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: দোষ ছিল পরপর তিন কন্যা সন্তানকে জন্ম দেওয়া৷ আর সেই কারণেই হয়তো অকালে প্রাণ হারাতে হল মা ও নিষ্পাপ ১০ মাসের শিশুকে৷ অভিযোগের তির স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে৷ এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের সাগরদীঘির বংশিয়া পওপাড়া এলাকায়৷

স্থানীয় সূত্রে খবর, প্রায় আট বছর আগে পেশায় কৃষক তাপস কুণ্ডুর সঙ্গে বিয়ে হয় এলাকারই বাসিন্দা সুমিত্রা মণ্ডলের৷ বিয়ের দু’বছর পর এক কন্যা সন্তান হয় তাদের। এরপর আবার দু’বছর পর তাদের আরও এক কন্যা সন্তান হয়।

আরও পড়ুন: দুঃস্বপ্ন কাটিয়ে সেনা অফিসারের সঙ্গে ঘর বাঁধছেন সেই ‘যৌনদাসী’

- Advertisement -

পরপর দু’টি কন্যাসন্তান হওয়ায় গৃহবধূর উপর শুরু হয় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। সম্প্রতি ১০ মাস আগে তাদের সংসারে আরও এক কন্যাসন্তান হওয়ায় গৃহবধূ সুমিত্রা মণ্ডলের উপর বাড়তে থাকে অত্যাচার। অভিযোগ, পরপর তিন কন্যাসন্তানের জন্ম দেওয়ায় সুমিত্রা মণ্ডলকে তাঁর বাবার বাড়ি থেকে ৫০ হাজার টাকা আনতে বলে স্বামী তাপস কুণ্ডু ও শ্বশুর-শাশুড়ি৷

কিন্তু সেই টাকা দিতে না পাড়ায় গৃহবধূর উপর শুরু হয় নির্মম অত্যাচার। এই অত্যাচারের খবর পেয়ে ১৯ আগস্ট রবিবার সকালে মেয়ের বাড়িতে যায় গৃহবধূর বাবা। কিছুক্ষণ পর তাঁর বাবা বাড়ি ফিরে এলে খবর আসে তাঁর মেয়ে ও তাঁর ১০ মাসের নাতনি মারা গিয়েছে৷ সুমিত্রার বাপের বাড়ির অভিযোগ, তাদের মেয়েকে শারীরিক নির্যাতনের পর পুড়িয়ে হত্যা করেছে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা৷ অভিযোগের নিশানা সুমিত্রার স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির সদস্যদের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন: বাঁকুড়া মেডিক্যালে গাফিলতিতে রোগী মৃত্যুর অভিযোগ

এদিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ওই গৃহবধূ ও তাঁর ১০ মাসের কন্যা সন্তানকে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভরতি করা হয়। দু’দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াইয়ের পর হার মানে গৃহবধূ ও তার ১০ মাসের কন্যাসন্তান। সোমবার রাতে সেখানেই মৃত্যু হয় দু’জনের।

গোটা ঘটনায় সাগরদীঘি থানায় অভিযোগ দায়ের করে গৃহবধূর বাবা৷ কিন্তু পুলিশ কোনও রকম সাহায্য করেনি বলে অভিযোগ উঠেছে। অবশেষে মঙ্গলবার জেলা পুলিশ সুপারের দ্বারস্থ হয় গৃহবধূর পরিবার। এদিন বহরমপুর থানায় পুনরায় স্বামী সহ শ্বশুর ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করে সুমিত্রার পরিবার। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ গোটা বিষয়টির তদন্ত শুরু করেছে৷ তবে ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্তরা৷

আরও পড়ুন: প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর নামে রাখা হচ্ছে এই শহরের নাম

Advertisement ---
---
-----