মুম্বই: পরণে সাদা পাজামা-পাঞ্জাবী। সঙ্গে জহরকোট। রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে একেবারে মানানসই। বয়স ৬৩। তবে যেভাবে নাচলেন, তাতে ভাইরাল হয়ে যাওয়াটাই স্বাভাবিক।

শনিবার মহারাষ্ট্রের ভাণ্ডারা-গোন্ডিয়ার সাংসদের সেই নাচের দৃশ্যই এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরছে। নতুন ছবি ‘সিম্বা’র গান ‘আঁখ মারে’তে নাচলেন তিনি। তাও আবার ছাত্রীদের পাশে দাঁড়িয়ে।

সংবাদসংস্থা এএনআই তাদের ট্যুইটারে এই ভিডিও প্রথম প্রকাশ করে। এনসিপি সাংসদ মধুকর কুকড়েকে সেখানে নাচতে দেখা গিয়েছে। ‘আঁখ মারে ও লড়কি আঁখ মারে’-গানের রিমেক। যেটা রণবীর সিং-সারা আলি খানের সদ্য মুক্তি পাওয়া ছবি ‘‌সিম্বা’‌ সুপারহিট হয়েছে। সেই গানেই নাচছেন তিনি।

স্কুলের অনুষ্ঠানে ‘আঁখ মারে’ গানের সঙ্গে নাচ মঞ্চস্থ হতে পারে কিনা তা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। কিন্তু তার থেকেও বেশি সমালোচনা শুরু হয়েছে মধুকর কুকড়ের নাচ নিয়ে। প্রবীণ এই নেতা আগে বিজেপিতে ছিলেন। ২০১৭ সালে বিজেপির ভাণ্ডারা-গোন্ডিয়ার সাংসদ নরেন্দ্র মোদীর তীব্র সমালোচনা করে দল ছাড়েন। এরপরই হয় উপনির্বাচন। সেই উপ নির্বাচনে এনসিপি থেকে টিকিট পেয়ে তাঁর পুরনো দলের প্রার্থীকে ৪৮ হাজার ভোটে পরাস্ত করেছিলেন মধুকর।

সাম্প্রতিককালে মহারাষ্ট্রে এ ধরনের ঘটনা এই প্রথম। তাও এক জন প্রবীণ সাংসদ এই কাণ্ড ঘটানোয় আরও বিতর্ক তুঙ্গে। ঘটনায় অস্বস্তিতে পড়েছে শরদ পাওয়ারের দল এনসিপি। দলের মুখপাত্র ডিপি ত্রিপাঠি বলেন, ‘‌কাণ্ডজ্ঞানহীন কাজ করেছেন মধুকর। ওঁনার উচিত এলাকার মানুষের থেকে ক্ষমা চেয়ে নেওয়া।’‌