মেলেনি অ্যাম্বুলেন্স! চলন্ত বাসে সন্তানের জন্ম দিলেন প্রসূতি

ভোপাল : ফের সেই স্বাস্থ্য পরিষেবার যন্ত্রণার ছবিটা সামনে এল৷ ফের অ্যাম্বুলেন্স পেলেন না সন্তানসম্ভবা৷ ফের এক ঝুঁকির প্রসব ঘটল রাস্তায়৷ মধ্যপ্রদেশের ছতরপুরের ঘটনা৷

এবার কাঠগড়ায় দাঁড়িয়েছে মধ্যপ্রদেশের সরকারি হাসপাতাল৷ তাদের গাফিলতিতে রাস্তাতেই প্রসব করতে হল প্রসূতিকে৷ কারণ তারা অ্যাম্বুলেন্স পাঠাতে চায়নি৷ এই গাফিলতিতে ঘটে যেতে পারত বড়সড় দুর্ঘটনা৷ তবে সাধারণ মানুষের তৎপরতায় মা ও শিশু দুজনেরই প্রাণ বাঁচে৷

প্রসূতিকে অ্যাম্বুলেন্স দিতে অস্বীকার করায় বাসে করে হাসপাতালে আসছিলেন ওই মহিলা৷ সঙ্গে ছিলেন মহিলার স্বামী৷ বাসে করে জেলা হাসপাতালে আসার পথে সন্তানের জন্ম দিলেন ওই মহিলা৷

- Advertisement DFP -

ছতরপুর জেলার বাসিন্দা ওই প্রসূতিকে গ্রামের প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে গিয়েছিলেন তাঁর পরিবারের লোকেরা। সেখানকার চিকিৎসকরা তাঁকে জেলা সদর হাসপাতালে স্থানান্তরিত করার কথা বলে৷

প্রসূতির শারীরিক অবস্থা ভালো না হওয়ায়, অ্যাম্বুলেন্সের জন্য আবেদন করেন মহিলার স্বামী। কিন্তু প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র পরিস্কার জানিয়ে দেয়, তারা কোনও অ্যাম্বুলেন্স দিতে পারবে না।

একরমক বাধ্য হয়েই বাসে করে জেলা হাসপাতালের দিকে রওনা দেয় ওই পরিবার৷ কিন্তু হাসপাতাল পর্যন্ত পৌঁছনোর আগেই বাসে প্রসব যন্ত্রণা ওঠে মহিলার৷ বাসেই সন্তানের জন্ম দেন তিনি৷ শেষ পাওয়া খবরে জানা গিয়েছে, মা ও শিশু দুজনের শারীরিক অবস্থাই স্থিতিশীল৷

দিন কয়েক আগেও, ছত্তিসগড়ের যশপুর এলাকায় এরকমই ঘটনা ঘটে৷ সেখানে রাস্তা ভাল নেই, তাই অ্যাম্বুলেন্স দেয়নি সরকারি হাসপাতাল৷ বাধ্য হয়েই যন্ত্রণা নিয়েই সরকারি হাসপাতালের পথে হাঁটতে থাকেন প্রসূতি। শেষে রাস্তাতেই শিশুর জন্ম দেন তিনি। সেই শিশু অবশ্য জন্মের কয়েকঘণ্টার মধ্যেই মারা যায়।

Advertisement
----
-----