কর্পোরেট-মুনাফা নিশ্চিতেই ওষুধে শুল্ক ছাড় প্রত্যাহার!

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কর্পোরেট কোম্পানিগুলিকে আরও মুনাফার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য, ওষুধের উপর আমদানি শুল্ক ছাড়ের বিষয়টি প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে! আর, কেন্দ্রীয় সরকারের এই ধরনের সিদ্ধান্তের জেরে, বিশেষ করে গরিব মানুষের-ই দুর্দশা আরও বেড়ে যাবে৷ যে কারণে, ওই ধরনের সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যাতে পুনর্বিবেচনা করেন, তার জন্য জানাল হল আর্জি৷

একই সঙ্গে, দেশের সাধারণ মানুষ যাতে বিনামূল্যে ওষুধের সুবিধা পেতে পারেন, তার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও জানানো হয়েছে ওই আর্জিতে৷ ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী সহ সমাজের বিভিন্ন অংশের মানুষের সমন্বয়ে গঠিত মেডিক্যাল সার্ভিস সেন্টারের তরফে, প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি মারফত জানানো হয়েছে ওই আর্জি৷ প্রধানমন্ত্রীকে পাঠানো ওই চিঠিতে জানানো হয়েছে, সম্প্রতি, ওষুধের উপর আমদানি শুল্ক ছাড়ের বিষয়টি প্রত্যহারের যে সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে, তার জেরে ৭৪টি ওষুধের দাম আরও বেড়ে যাবে৷ ওই ৭৪টির মধ্যে যেমন রয়েছে জীবনদায়ী, তেমনই রয়েছে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় ওষুধও৷ আর, কেন্দ্রীয় সরকারের ওই ধরনের সিদ্ধান্তের জেরে, সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন এ দেশের গরিব মানুষরা৷

মেডিক্যাল সার্ভিস সেন্টারের তরফে কেন্দ্রীয় সরকারের ওই ধরনের সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়েছে৷ এবং, সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য ওই সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি, অধ্যাপক সনাতন রথ এবং সাধারণ সম্পাদক, ডাক্তার বিজ্ঞান বেরার তরফে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দেওয়া হয়েছে৷ ওই চিঠিতে জানানো হয়েছে, কেন্দ্রীয় সরকারের ওই ধরনের সিদ্ধান্তের জেরে, দেশি এবং বিদেশি ফার্মা কর্পোরেট কোম্পানিগুলিকে আরও বেশি মুনাফা পাইয়ে দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে৷ এই ধরনের দাবির পিছনে কারণ হিসেবে ওই চিঠিতে মেডিক্যাল সার্ভিস সেন্টারের তরফে যুক্তি দেওয়া হয়েছে, আমদানি শুল্ক ছাড়ের বিষয়টি প্রত্যাহারের ফলে জীবনদায়ী এবং অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বহু ওষুধের দাম বেশ কয়েক গুণ বেড়ে যাবে৷ যে কারণে, বিশেষ করে এ দেশের গরিব মানুষের দুর্দশার বিষয়ে ওই সংগঠনের তরফে উদ্বেগ এবং আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে৷ ওই ৭৪টির মধ্যে রয়েছে ক্যান্সার, লিউকোমিয়া, হার্ট অ্যাটাক, ডায়াবেটিস, এইচআইভি, হেপাটাইটিস বি, কিডনি স্টোন, পার্কিনসন্স সহ শিশু এবং মহিলাদের বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধও৷ মেডিক্যাল সার্ভিস সেন্টারের  তরফে ওই চিঠিতে জানানো হয়েছে, ড্রাগ প্রাইস কন্ট্রোল অর্ডারস (ডিপিসিও) অনুযায়ী সরকারের তরফে গুরুত্বপূর্ণ, প্রয়োজনীয় ওষুধের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার কথা৷ অথচ, কেন্দ্রীয় সরকারের ওই ধরনের সিদ্ধান্তের জেরে সাধারণ মানুষের-ই স্বার্থ এখন অসুরক্ষিত হতে চলেছে৷

- Advertisement -

___________________________________________________________

আরও খবর:
(০১) সংবিধানের মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে বন্ধ সরস্বতী পুজো!
(০২) বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারেও কর্তৃপক্ষের নতিস্বীকার!
(০৩) ক্রিমিন্যাল কেসে অভিযুক্তের সম্মানে উজ্জ্বল হয় ইমেজ!
(০৪) জিএনএম-এর অবলুপ্তি-অবমূল্যায়নের শিকার নার্সরা!
(০৫) রাজনীতির শিকারে বহিষ্কৃত তিন ইন্টার্ন সহ এক পড়ুয়া!
(০৬) প্রশিক্ষণের পর কোন নামে ডাকা হবে এই ‘ডাক্তার’দের!

___________________________________________________________

Advertisement ---
---
-----