বুথস্তরে মুকুলই ঢাকবেন বিজেপির সাংগঠনিক দুর্বলতা, স্বীকার দিলীপ ঘোষের

মানব গুহ, কলকাতা : মুকুল রায়ে যে বিজেপির বুথস্তরে সাংগঠনিক ঢাকতে বড় ভূমিকা নেবেন, তা স্বীকার করে নিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷শনিবার কলকাতায় দলের রাজ্য সদর দফতরের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি বললেন, ‘‘অনেক বুথে আমাদের লোক নেই৷উনি এলে ওঁর অনুগামীরাও আসবেন৷আরও অনেকে আসবেন৷’’ মুকুল রায় যেহেতু গোটা পশ্চিমবঙ্গের বুথস্তরের নেতা-কর্মীদেরও চেনেন, তাই এবার বিজেপিরও শক্তি বাড়বে৷

আরও পড়ুন: কত টাকার বিনিময়ে গেরুয়া বসন পরলেন মুকুল রায়?

আর ক’মাস পরেই রাজ্যে ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচন৷ ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটের পর থেকে এ রাজ্যে বিজেপি কতটা শক্তি সঞ্চয় করতে পেরেছে, তার পরীক্ষা হবে ওই ভোটেই৷ আর ২০২১ তৃণমূলকে রাজ্যের ক্ষমতা থেকে সরানোর যে স্বপ্ন বিজেপি নেতারা দেখছেন, সেই লক্ষ্যেও পঞ্চায়েতের ফলাফলও কার্যকরী ভূমিকা নেবে৷ কিন্তু পঞ্চায়েত নির্বাচনে ভাল ফল করতে হলে বুথস্তর পর্যন্ত সাংগঠনিক দৃঢ়তা প্রয়োজন৷ যা এ রাজ্যে এক সময় সিপিএমের ছিল৷ গত দশ বছরে তা এখন তৃণমূলের রয়েছে৷ ফলে তৃণমূলের সঙ্গে সেই লড়াইয়ের ময়দানে টক্কর দিতে বিজেপি কতটা তৈরি, সে প্রশ্নও মাঝেমধ্যেই সামনে আসে৷ যেমন এল শনিবার সকালেও৷ তখনই পশ্চিমবঙ্গে বুথস্তরে বিজেপির সাংগঠনিক দুর্বলতার কথা স্বীকার করে নিলেন দিলীপ ঘোষ৷ একই সঙ্গে তিনি স্পষ্ট করলেন, আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনে মুকুল রায়ের সাংগঠনিক দক্ষতাকে কাজে লাগাবে বিজেপি৷ কারণ, তাঁর বিশ্বাস, মুকুল রায়ের সঙ্গে তাঁর অনুগামীরাও এবার বিজেপিতে ভিড়বেন৷

- Advertisement -

আরও পড়ুন: বিজেপির বিক্ষুব্ধরাই বলছেন, মুকুল নন মমতাই একমাত্র জনপ্রিয়

কিন্তু সেক্ষেত্রে বিজেপির অবস্থা তৃণমূলের মতো হবে না তো, উঠছে সেই প্রশ্নও৷ কারণ, ২০১১ সালে তৃণমূল ক্ষমতায় আসার পর সিপিএম-কংগ্রেস থেকে বহু মানুষ তৃণমূলে নাম লিখিয়েছিলেন৷ ফলে আদি ও নব্য তৃণমূলীদের মধ্যে দ্বন্দ্ব এখন চরমে৷ সেই গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব তো এবার বিজেপিতেও হতে পারে৷ কারণ, এতদিন ধরে যাঁরা বিজেপির সঙ্গে যুক্ত, তাঁদের সঙ্গে লড়াই লাগতে পারে মুকুল-অনুগামীদের সঙ্গেও৷ এই প্রশ্ন kolkata24x7-এর তরফে সরাসরি ছুঁড়ে দেওয়া হয়েছিল দিলীপ ঘোষের দিকে৷ তিনি অবশ্য সেই সম্ভাবনাকে সঙ্গে সঙ্গেই নাকচ করে দিয়েছেন৷

একই সঙ্গে দিলীপবাবু স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, নারদা-সারদা নিয়ে তাঁদের আন্দোলন আগের মতোই চলবে৷ মুকুল রায় এই দুর্নীতিতেই অভিযুক্ত৷ফলে বিজেপির আন্দোলনের ধার এবার কমতে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে৷ কিন্তু সে কথা মানতে নারাজ খড়গপুরের বিধায়ক৷ তাঁর কথায়, মুকুল রায় যে দোষী, তা এখনও প্রমাণ হয়নি৷

Advertisement ---
-----