দিল্লিতে এবার মুকুল-অভিষেক লড়াই

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : বাংলার রাজনৈতিক লড়াই এবার রাজধানীর অলিন্দে৷ সপ্তাহের শুরুতেই তা একদফা হয়ে গিয়েছে দিল্লি হাইকোর্টে৷ এবার পরবর্তী লড়াই হতে চলেছে দিল্লির পাতিয়ালা হাউজ কোর্টে৷ তবে সোমবার মুকুল ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের মধ্যে আইন লড়াই হয়েছিল৷ আর শনিবার হবে মুকুল রায় ও যুব তৃণমূলের সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যে৷

প্রসঙ্গত, ১০ নভেম্বর কলকাতার রানি রাসমনি রোডের সভা থেকে বিজেপি নেতা মুকুল রায় ডায়মন্ডহারবারের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে একাধিক গুরুতর অভিযোগ করেন৷ বিশ্ববাংলা একটি কোম্পানির নাম৷ আর সেই কোম্পানির মালিক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলে সেদিন দাবি করেছিলেন মুকুল রায়৷ রাজ্য সরকারের তরফে এই দাবি উড়িয়ে দেওয়া হয়৷ যদিও অভিযোগ প্রকাশ্যে আসার পরই অভিষেকের তরফে মুকুল রায়ের কাছে আইনি নোটিশ যায়৷ তার জবাবে পাল্টা আইনি নোটিশ পাঠানো হয় মুকুল রায়ের তরফে৷

বৃহস্পতিবার মুকুল রায়ের আইনজীবী সোম মণ্ডল জানান, অভিষেকের তরফে যে নোটিশ দেওয়া হয়েছিল, তাতে মুকুল রায়ের অভিযোগের ভুল ব্যাখ্যা করা হয়েছিল৷ আর তা জানিয়েও দেওয়া হয় মিডিয়াকে৷ তাই গত সপ্তাহে মুকুল রায়ের তরফে তাই পাল্টা আইনি নোটিশ দেওয়া হয় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে৷ সাতদিনের মধ্যে ক্ষমা চাইতে বলা হয়৷ কিন্তু কোনও উত্তর না পেয়ে তাই আদালতের দ্বারস্থ হলেন মুকুল রায়৷

এদিন আইনজীবী সোম মণ্ডল অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মুকুল রায়ের তরফে মানহানির মামলা করেন দিল্লির পাতিয়ালা হাউজ কোর্টে৷ পরে সোম মণ্ডল জানান, আগামী শনিবার ওই মামলার শুনানি হবে৷

এদিকে আলিপুরদুয়ার আদালতে একটি মামলাও হয়৷ সেই মামলার প্রথম শুনানিতে বিচারকের দেওয়া নির্দেশ মুকুল রায়ের বিপক্ষেই গিয়েছে৷ আগামী ১৪ ডিসেম্বর ওই মামলার শুনানি৷ সেই শুনানির আগে বিশ্ববাংলা ইস্যুতে অভিষেকের বিরুদ্ধে মুকুল রায় কোনও মন্তব্য করতে পারবেন না বলে আদালত জানিয়েছে৷ তার পর যদিও ফেসবুকে অভিষেকের বিরুদ্ধে সমালোচনায় সরব হয়েছেন মুকুল রায়৷ তবে সেখানে তিনি বিশ্ববাংলা নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি৷ তবে এভাবে আদালতকে হাতিয়ার করে কেউ কেউ রাজনৈতিক ময়দান ছেড়ে পালাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন৷ আর এই মন্তব্য তিনি অভিষেকের উদ্দেশ্যেই করেন বলে মনে করা হচ্ছে৷

এবার দেখার শনিবার দিল্লির আদালত কী রায় দেন এই মামলায়!

-------
----