মমতা না হিটলার, উত্তর খুঁজতে আলোচনা চক্র

দেবময় ঘোষ, কলকাতা: মুখাবয়বের একাংশ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের৷ অন্য অংশ অ্যাডলফ্ হিটলারের৷ শহরের বিভিন্ন এলাকায় রাজ্যের গণতন্ত্রের মুখাবয়বের এই চিত্রের সৌজন্যে রয়েছে নববঙ্গ৷ একটি অরাজনৈতিক মঞ্চ৷ বাংলার হারানো গৌরব ফিরিয়ে নবজাগরণ আনতে চায় তারা৷ আগামী ৩ জুন শহরের একটি সভাকক্ষে ‘Murder of Democracy in Bengal’ শীর্ষক আলোচনায় মূল বক্তা বিজেপির জাতীয় সাধারণ সম্পাদক এবং পশ্চিমবঙ্গের পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গীয়, বিজেপি নেতা মুকুল রায়, চলচ্চিত্র নির্মাতা বিবেক অগ্নিহোত্রী৷

বাংলার পঞ্চায়েত নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে হিংসা, হানাহানি, ভোটলুঠ, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়, ব্যালট বাক্স লুঠ কিংবা গণনার দিন ছাপ্পা, মৃত্যু মিছিল – সব কিছুই আগের সব ঘটনাকে ছাপিয়ে গিয়েছে৷ ভোটের দিনই নজীরবিহীন সন্ত্রাসের বলি প্রায় জনা ২০৷ ভোটের আগে বা পরের হিসেব যোগ করলে সেই সংখ্যাটা আরও বেশি৷ সারা দেশে, সারা বিশ্বে হেঁট হয়েছে বাঙালির মাথা৷ বাংলার গৌরবে এক সময় দেশের মাথা উঁচু হত৷ আজ কোথায় সে বাংলা৷ প্রশ্ন তুলেছে নববঙ্গ৷

নববঙ্গের আহ্বায়ক সৌমেন পুরকায়স্থ বলেন, ‘‘বাংলার ইতিহাস সাধারণ নয়৷ কিন্তু সারা বিশ্বেই আজ বাঙালীদের মাথা হেঁট হয়েছে গিয়েছে৷ বাঙালী মাথা উঁচু করে হাঁটতে পারছে না৷ পঞ্চায়েত ভোটে যেভাবে গণতন্ত্রকে খুন করা হল, তা সারা বিশ্ব দেখেছে৷ বাঙালিকে সে লজ্জা বয়ে বেড়াতে হচ্ছে৷ সভাকক্ষে ‘Murder: Democracy in Bengal’ শীর্ষক আলোচনার মূল উদ্দেশ্য সেখানেই৷’’

- Advertisement -

রাজধানীর বিভিন্ন Thinktank – এ বিদেশনীতি নিয়ে আলোচনা করেন৷ পড়াশোনা, বেড়ে ওঠা কলকাতাতেই৷ তাঁর বক্তব্য, ‘‘পশ্চিমবঙ্গ একটি ঋণগ্রস্ত রাজ্য৷ রাজ্যে উন্নয়ন নেই৷ চাকরি নেই৷ একনায়কতন্ত্র আছে৷ অগণতান্ত্রিক ফ্যাসিস্ট সরকার আছে৷’’

Advertisement ---
---
-----