আদিবাসীদের পতিত জমিতে ফলের বাগান তৈরি করবে নাবার্ড

স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: বাঁকুড়ার হিড়বাঁধ এলাকার ‘ওয়াড়ি প্রকল্প’ পরিদর্শনে এলেন নাবার্ডের একটি প্রতিনিধি দল। সংস্থার পশ্চিমবঙ্গের চিফ জেনারেল ম্যানেজার একে রায় বর্মনের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটি শনিবার এই এলাকার বেলডি, রায়ডি, ভূয়াকানা গ্রামের ‘ওয়াড়ি প্রকল্প’ বা বাগিচা চাষের ক্ষেত্রগুলি ঘুরে দেখেন।

এদিন রাজ্যের নাবার্ডের চিফ জেনারেল ম্যানেজার একে রায় বর্মণ বলেন, ‘‘এই এলাকার আদিবাসীদের উন্নয়নের জন্য নাবার্ডের পক্ষ থেকে তাদের পতিত জমিগুলিতে ফলের বাগান তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। যাতে তারা এই বাগান থেকে উৎপাদিত ফল বিক্রি করে স্বাবলম্বী হতে পারেন।’’

হিড়বাঁধের গ্রামগুলিতে নাবার্ডের প্রকল্প সঠিকভাবে বাস্তবায়িত হওয়ায় খুশি প্রতিনিধি দলটি। এখানে উৎপাদিত ফসল যাতে কোন মধ্যস্থতাকারী ছাড়াই বাজারজাত করা যায় তার উদ্যোগ নেওয়ার আবেদন জানান স্থানীয় চাষিরা। কারণ এখানে একদল মধ্যস্থতাকারী বা ফড়ে এখানের উৎপাদিত ফসল কিনে নিয়ে যায়। চাষিরা অনেক সময় ন্যায্য দাম পায়না। একথা চাষিদের কাছ থেকে শোনার পর সেদিকেও নজর দেওয়ার কথা জানান নাবার্ডের আধিকারিকরা।

- Advertisement -

হিড়বাঁধে রামকৃষ্ণ-সারদা সেবাশ্রম ও পল্লী উন্নয়ন সংস্থার পক্ষ থেকে প্রথম এখানে এই ‘ওয়াড়ি প্রকল্পে’র সূচনা করা হয়। সংস্থার পক্ষে কৌশিক বিশ্বাস বলেন, এখানকার মোট ১০০৭ একর জমিকে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশ জমিই স্থানীয় আদিবাসীদের। এই প্রকল্পের মাধ্যমে একশোটি পরিবার আর্থিকভাবে উপকৃত হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

Advertisement ---
---
-----