গ্রামের মুসলিম নামে ছড়াছিল বিভ্রান্তি, তাই বদলে গেল নাম

জয়পুর: গোয়েন্দা ফেলু মিত্তিরকে বিভ্রান্ত করতে বারমের যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছিল ঠগ মন্দার বোস। যদিও মগজাস্ত্রের দৌলতে বিভ্রান্ত হয়নি ফেলুদা। এমনই দেখা গিয়েছিল সত্যজিৎ রায় পরিচালিত সোনার কেল্লা ছবিতে।

বারমের নাম শুনে বিভ্রান্ত হননি বাঙালির প্রিয় পাত্র। কিন্তু ওই জেলারই গ্রামের নাম নিয়ে ছড়াচ্ছিল বিভ্রান্তি। যার জেরে বদল করা হল রাজস্থানের গ্রামের নাম। এই নাম বদলে সিলমোহর দিল কেন্দ্র।

মিয়োকা বড়া নামের একটি গ্রামের নাম বদল করে করা হয়েছে মহেশপুর। গত জুন মাসেই এই নাম বদলের বিষয়ে রাজস্থান সরকারের কাছে ছাড়পত্র পাঠিয়ে দেয় কেন্দ্র। স্থানীয়দের বক্তব্য, গ্রামের নাম মিয়োকা বড়া হওয়ায় সমগ্র গ্রামটিকে সবাআই মুসলিম অধ্যুষিত বলে মনে করে। যার কারণে অনেক সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়। বিশেষ করে ছেলে-মেয়েদের বিয়ের ক্ষেত্রে হয় নানাবিধ সমস্যা। যদিও গ্রামের দুই হাজার জনে বাসিন্দার মধ্যে নেই কোনও মুসলিম।

- Advertisement -

গ্রামের সরপঞ্চ হানওয়ান্ত সিং জানিয়েছেন যে গ্রামের নাম আগে ছিল মহেশ রো বড়া। পরে সেটিই বিকৃত হয়ে মিয়োকা বড়া হয়ে যায়। তার কথায়, “ছোটবেলায় জানতাম আমাদের গ্রামের নাম মহেশ রো বড়া। কয়েক দশকের মধ্যে নামটা পালটে যায়।” তিনি আরও বলেছেন, “২০১০ সালে আমি সরপঞ্চ হওয়ার পর থেকে নাম বদলের বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছিলাম। পুরনো নথি দিয়ে নাম বদলের জন্য প্রশাসনিক দফতরে আবেদন করেছিলাম। গত জুন মাসের প্রথম দিন সেই আবেদন মঞ্জুর করেছে কেন্দ্র। গ্রামের নতুন নাম হয়েছে মহেশনগর।”

যদিও এই নাম বদলের পিছনে রাজস্থান রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্রের সরকারের অন্য অভসন্ধি রয়েছে বলে অভিযোগ করেছে অনেকে। সংঘের মতাদর্শে অনুপ্রাণীত বিজেপি দুই জায়গাতেই সরকার পরিচালনা করছে। গ্রামগুলির মধ্যেও ধর্মান্তর প্রক্রিয়া চালু করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে পদ্ম শিবিরের বিরুদ্ধে। মিয়োকা বড়া ছাড়াও আরও সাতটি গ্রামের নাম বদল করা হয়েছে রাজস্থানে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নামগুলি ছিল মুসলিম নাম। যেগুলির বদল করা হয়েছে। যেমন ইসমাইলপুর গ্রামের নাম বদলে রাখা হয়েছে পিচানবা খুর্দ।

Advertisement
---