কাঠমান্ডু: আকাশ বাতাসে হরেক রঙের খেলা৷ হিমালয় কন্যার অঙ্গে ফাগ-আবিরের স্পর্শ৷ বাগমতী নদীর কুল থেকে এভারেস্টের প্রান্ত পর্যন্ত রঙিন হয়ে গিয়েছে৷ হোলিমা শুভ হো…অর্থাৎ হোলি উৎসব শুভ হোক এমনই বার্তা দিয়েছে গণপ্রজাতন্ত্র নেপাল৷ হিমালয়ের দেশ, সগরমাথা (মাউন্ট এভারেস্ট) থেকে সেই বার্তা ছড়িয়েছে সর্বত্র৷

আরও পড়ুন: লাগল যে দোল…উৎসবে মাতোয়ারা পদ্মাপারের বাংলা

Advertisement

প্রতিবারের মতো এবারেও রাজধানী শহর কাঠমান্ডুর রাস্তায় হোলির রঙের মাতোয়ারা৷ বিভিন্ন দেশের পর্যটকরা একে অপরকে রাঙিয়ে নিয়েছেন৷ ভারতীয়র আবিরে রঙিন হয়েছেন সুইস নাগরিক৷ ব্রিটিশ নাগরিক রঙ মাখালেন জার্মানির পর্যটককে৷ জাপানি পর্যটকের মুখে রঙ দিলেন ভিয়েতনামি৷

এরকমই টুকরো মুহূর্ত সর্বত্র দেখা গেল৷ আর নেপালি জনগণের আবির ছড়িয়ে পড়ল রাজধানীর রাস্তায় রাস্তায়৷ সেই রঙ যেন দুনিয়ার সর্বত্র মিশল৷ পর্যটন নগরী কাঠমান্ডুর রাস্তায় নেপালি-ভিনদেশিদের রঙের খেলা চলেছে সমানে৷

আরও পড়ুন: হোলি হ্যায়…রঙিন হয়ে গেল পাকিস্তান

নেপালের অন্যতম উৎসব হোলি৷ সেই উৎসবে শুভেচ্ছা দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট বিদ্যাদেবী ভাণ্ডারি, প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি৷ নেপালের সরকারের তরফে হোলির শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে ভারতকেও৷ সম্প্রতি সংবিধান সংশোধনের পর গণতান্ত্রিক নেপালের প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন সিপিএন (ইউএমএল) ও নেপালি মাওবাদী জোটের নির্বাচিত কেপি ওলি৷ দুই বামপন্থী দল পরস্পর মিশে যাওয়ার পথ সুগম করেছে৷ এই বিষয়ে একমত হয়েছেন সিপিএন(এমসি) প্রধান প্রচণ্ড৷ মাওবাদী প্রধান নেতা তথা প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী তরফেও হোলির শুভেচ্ছা দেওয়া হয়েছে৷

 

দেশের জনসংখ্যার বেশিরভাগই হিন্দু সম্প্রদায়ের৷ আর সম্প্রতি জাতীয় নির্বাচনের নিরিখে এই মুহূর্তে নেপালের রঙ লাল৷ দেশে ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট ও মাওবাদী জোট৷ রাজতন্ত্র পতনের পর বার বার সরকার বদলের ধাক্কায় নেপালের প্রধানমন্ত্রীর মুখ পাল্টে গিয়েছে৷

কখনো বামপন্থী, কখনো মাওবাদী তো কখনো নেপালি কংগ্রেস ক্ষমতায় এসেছে৷ প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক থেকেছে নরমে-গরমে৷ আবার চিনের সঙ্গে নেপালের সুসম্পর্ক তৈরি হওয়া নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়েছে নয়াদিল্লি৷ হোলি উৎসবে ভারতের তরফেও নেপাল সরকার ও সেখানকার বাসিন্দাদের শুভেচ্ছা দেওয়া হয়৷

আরও পড়ুন: মমতার ফুল-মিষ্টি গেল বুদ্ধদেবের বাড়িতে

 

----
--