চুমু ভালো, তবে…!

যে কোনও মূল্যে পণ্যের প্রচার, এটাই বিজ্ঞাপনদাতাদের লক্ষ্য৷ বড় বড় অক্ষর, ইচ্ছেকৃত ভুল, এগুলো এখন বেশ পুরনো ব্যাপার৷ বড় প্রতিষ্ঠানগুলো তাই এখন নতুন নতুন পন্থার সন্ধানে ব্যস্ত৷ কখনও তা অতিক্রম করে সব সীমানা৷

কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পে সানগ্লাসের বিজ্ঞাপন

এক ইন্টারনেট ভিডিওতে সানগ্লাসের বিজ্ঞাপন প্রচার করেছে অস্ট্রেলিয়ান ভ্যালি আইওয়্যার৷ কিন্তু বিপত্তি বেঁধেছে ভিডিও শ্যুটের স্থান নিয়ে৷ স্টাইনেমে ব্ল্যুম নামের ক্রোয়েশিয়ার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার এক কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পে গ্রহণ করা হয়েছে এর ভিডিওচিত্র৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে এই ক্যাম্পে ৮০ হাজারেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন৷ ব্যাপক বিক্ষোভের পর অবশ্য ভিডিওটি মুছে ফেলতে বাধ্য হয় প্রতিষ্ঠানটি৷

স্বাদ থাকলেও রুচিহীন

বিশ্বকাপ চলাকালীন সময়ে রাশিয়ার বার্গার কিং এক বিজ্ঞাপনে রুশ নারীদের বিভিন্ন দেশের খেলোয়াড়দের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপন ও গর্ভধারণের আহ্বান জানায়৷ রাশিয়াতে খেলোয়াড়দের জিন রেখে দেওয়াই এর উদ্দেশ্য বলেও বিজ্ঞাপনে উল্লেখ করে তারা৷ এমনকি সেসব মহিলাদের জন্য সারা জীবন বিনামূল্যে হ্যামবার্গার এবং নগদ অর্থ পুরষ্কারের ঘোষণাও দেয় বার্গার কিং৷ প্রতিবাদের মুখে গায়েব হয় এই বিজ্ঞাপনও৷

ভালো মানেই তিন?

জার্মান এই প্রবাদ সবক্ষেত্রে খাটে না৷ ইলেক্ট্রনিকস চেইন মিডিয়া মার্ক্ট ২০০১ সালে তিন স্তনবিশিষ্ট এক নারীর ছবি প্রকাশ করে৷ পোস্টারে লিখা ছিল, ‘যা ভাবছো, আছে তার চেয়েও বেশি কিছু’৷ তীব্র প্রতিবাদের মুখে কয়েক দিনের মধ্যে ১৫ হাজার পোস্টার সরিয়ে নিতে বাধ্য হয় মিডিয়া মার্ক্ট৷

হোয়াইট ওয়াশ

শাংহাই লেইশাং কসমেটিকসের এই বিজ্ঞাপনের বিরুদ্ধে ওঠে বর্ণবাদের অভিযোগ৷ কাপড় ধোয়ার ডিটারজেন্ট প্রস্তুতকারী এই প্রতিষ্ঠান ২০১৬ সালের এই বিজ্ঞাপনে দেখা যায় এক কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তিকে ওয়াশিং মেশিনে ঢুকিয়ে শেতাঙ্গ বানানো হচ্ছে৷ পরে অবশ্য এ জন্য ক্ষমা চায সে প্রতিষ্ঠান৷

আবারও বর্ণবাদ!

২০১৮ সালও এড়াতে পারছে না বর্ণবাদের থাবা৷ সুইডিশ ফ্যাশন চেইন এইচ অ্যান্ড এম একটি হুডির বিজ্ঞাপন প্রচার করে, যেখানে ইংরেজিতে লিখা ছিল, ‘বনের সবচেয়ে দারুণ বাঁদর’৷ এবং মডেল হিসেবে দেখানো হয়েছে এক কৃষ্ণাঙ্গ বালককে৷ বিশ্বব্যাপী দেখা দেয় এর ব্যাপক প্রতিক্রিয়া৷ দক্ষিণ আফ্রিকায় বিক্ষুব্ধ জনতা এইচঅ্যান্ডএম-এর একাধিক স্টোরে ভাঙচুর চালায়৷ পরে প্রতিষ্ঠানটি ক্ষমা চাইতে বাধ্য হয়৷

চুমু ভালো, তবে…

আরেক বড় টেক্সটাইল প্রতিষ্ঠান বেনেটন প্রায়ই বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে বিতর্ক সৃষ্টি করে৷ ২০১১ সালে ‘আনহেইট’ অর্থাৎ ‘ঘৃণা নয়’ নামে একটি ক্যাম্পেইন চালায়৷ বিজ্ঞাপনের ফটোশপ করা ছবিতে দেখা যায় তৎকালীন পোপ ষোড়শ বেনেডিক্ট এবং মিশরের আল-আজহার মসজিদের শেখ আহমেদ মোহাম্মদ আল-তায়েব পরস্পরের ঠোঁটে চুমু খাচ্ছেন৷ ভ্যাটিকান মামলার হুমকি দিলে বিজ্ঞাপন সরাতে বাধ্য হয় বেনেটন৷

----
-----